নয়াদিল্লি : বেশ কয়েকটি রাজ্যে আজ সোমবার থেকেই খুলে যাচ্ছে স্কুল। পাঁচ মাস বন্ধ থাকার পর অবশেষে স্কুল খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কয়েকটি রাজ্য। তবে আংশিক ভাবে এই স্কুল খোলা হবে বলে জানানো হয়েছে।

নবম শ্রেণী থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত পড়ুয়া গাইডলাইন মেনে স্কুলে যেতে পারবে বলে জানানো হয়েছে। কেন্দ্রের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে কোনও পড়ুয়া স্কুলে যেতে না চাইলে বা কোনও অভিভাবক স্কুলে তাদের সন্তানদের পাঠাতে না চাইলে, স্কুল কর্তৃপক্ষ কোনওভাবেই তাদের বাধ্য করতে পারবে না। কেন্দ্রের পক্ষ থেকে বেশ কয়েকটি গাইডলাইন জারি করা হয়েছে।

পড়ুন আরও- ২১ সেপ্টেম্বর থেকে স্কুল খোলা বাধ্যতামূলক নয়, জানাল কেন্দ্র

স্কুলে ঢুকতে গেলে এই নিয়মগুলি মেনে চলতেই হবে বলে জানানো হয়েছে। দিল্লি, গুজরাত, কেরল, উত্তর প্রদেশ, উত্তরাখন্ড ও পশ্চিমবঙ্গ সরকার জানিয়ে দিয়েছে এখনই তাঁরা স্কুল খোলার পক্ষপাতী নয়।

সোমবার থেকে তাই অন্ধ্রপ্রদেশ, অসম, বিহার, দিল্লি, হরিয়ানা, জম্মু –কাশ্মীর, কর্ণাটক, পঞ্জাবে শর্তসাপেক্ষে খুলে যাচ্ছে স্কুল। অন্ধ্রপ্রদেশ জানিয়েছে নবম শ্রেণী থেকে দ্বাদশ শ্রেনী স্বাভাবিক ভাবেই ক্লাস করবে। কনটেনমেন্ট জোনে বসবাসকারী কোনও ছাত্র বা শিক্ষককে স্কুলে আসতে দেওয়া যাবে না।

স্কুলে আসতে গেলে অভিভাবকদের লিখিত অনুমতি পত্র নিয়ে আসতে হবে। অসম সরকার জানিয়েছে কড়া নির্দেশিকা মেনে তবেই স্কুল খুলে দেওয়া হবে। সামাজিক দূরত্ব বিধি মেনে চলতে হবে। নবম শ্রেণী থেকে দ্বাদশ শ্রেনীর পড়ুয়ারা স্কুলে আসতে পারবে। প্রথম ১৫ দিন গোটা বিষয়টি পর্যবেক্ষণে রাখা হবে।

পড়ুন আরও- ‘নবান্নে জানিয়ে তল্লাশি চালালে জঙ্গিরা পালাত’, বিদ্রূপ সায়ন্তনের

বিহার সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে প্রাথমিক ভাবে ৩০শে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত স্কুল কলেজ কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হলেও, নবম শ্রেণী থেকে দ্বাদশ শ্রেনীর পড়ুয়ারা সোমবার থেকে স্কুলে যেতে পারে। তবে কোনও বাধ্যতামূলক নির্দেশ জারি করা হয়নি।

দিল্লির কেজরিওয়াল সরকার জানিয়ে দিয়েছে, সব স্কুল অক্টোবরের পাঁচ তারিখ পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। তবে কোনও পড়ুয়া যদি চায় পড়াশুনার জন্য কোনও শিক্ষকের পরামর্শ নিতে হবে, তবে তার জন্য বিশেষ নির্দেশ মেনে স্কুলে যেতে পারে। তার বাইরে স্কুলের তরফে অনলাইন ক্লাস চলবে।

হরিয়ানা সরকার জানিয়েছে সোমবার থেকে নবম শ্রেণী থেকে দ্বাদশ শ্রেনীর পড়ুয়ারা স্কুলে যেতে পারে। তবে শিক্ষকদের করোনা টেস্টের ফল নেগেটিভ হতে হবে। শিক্ষকদের ফোনে থাকতে হবে আরোগ্য সেতু অ্যাপ। জম্মু কাশ্মীরেও স্কুল খুলছে সোমবার থেকে।

অষ্টম শ্রেণী থেকে দ্বাদশ শ্রেণীর পড়ুয়ারা স্কুলে আসবে। প্রতিদিন ৫০ শতাংশ উপস্থিতি রাখতে হবে। কর্ণাটক ও পঞ্জাবেও একই ধরণের গাইড লাইন জারি করা হয়েছে।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।