কলকাতা : স্কুল দখল করে বিয়েবাড়ি। তাও কলকাতার বুকেই এমন ঘটনা ঘটেছে। এর আগেও স্কুলের মধ্যে এমন বিয়ে বাড়ি ভাড়া দেওয়ার ঘটনা সামনে এসেছে, কিন্তু কলকাতায় এমন ঘটনার খবর মেলে না। এবার সেই ঘটনা ঘটল গার্ডেনরিচে।

অভিযোগ, নিমক মহল রোডের আর্য পরিষদ বালিকা বিদ্যাপীঠের পঞ্চাশ শতাংশই চলে গিয়েছে দখলদারদের হাতে। সেখানে চলছে বিয়েবাড়ি। বৃহস্পতিবার স্কুলের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা। তার আগেই মাঠে ঢোকার গেটে কেউ তালা মেরে দিয়েছে। স্কুলে ১১০০ ছাত্রী কোনও অনুশীলনই করতে পারছে না। ভেতরে পুরো জায়গা কাপড় দিয়ে ঘিরে ম্যারাপ বাঁধা হচ্ছে। আনা হয়েছে এলইডি লাইট, টুনি বাল্ব, ফুলের তোড়া।

শুধুমাত্র মাঠ নয়, রোজ যে হলে প্রার্থনা হয় সেই হলটিও তালা মেরে দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ। এদিকে অন্যদিক দিয়ে অনেককেই মই, আনাজ, ফুলের বোকে নিয়ে ঢুকতে দেখা গিয়েছে। এদের দাবি তারা রাজ নামে কোনও এক ব্যক্তির লোক। কিন্তু কে এই রাজ? এলাকাবাসীর দাবি, রাজ এলাকার কাউন্সিলর রামপেয়ারি রামের খুব কাছের লোক। তাঁর আবদারে বিয়ের মরসুমে নাকি ৪-১০ দিন স্কুলের মধ্যে বসে বিয়েবাড়ির আসর। এদিকে রাম পেরারি রামের দাবি, তিনিই স্কুলের অনুমোদন করিয়েছেন। এলাকার বিভিন্ন কাজে স্কুলের মাঠ ব্যবহার হয়ে থাকে। তাই এ ক্ষেত্রেও তাই হয়েছে।

বিয়েবাড়ির আয়োজকেরও দাবি, অনুমতি নিয়েই স্কুল চত্বরে বিয়েবাড়ির আয়োজন করা হয়েছে। কিন্তু স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা সেই কথা অস্বীকার করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, স্কুলে স্পোর্টস উপলক্ষে প্যান্ডেল বলা হয়েছে, সিকিউরিটিকে বলা হয়েছে। সব আয়োজন হয়ে গিয়েছে। স্কুল চত্বরেই চলছে বিয়েবাড়ির আয়োজন।
রামপেয়ারি রামের দাবি, তাঁর উদ্যোগেই স্কুলের অনুমোদন পাওয়া গিয়েছে। তিনি এক সময়ে ওই স্কুলে ছাত্র ছিলেন। পরে সেটি বালিকা বিদ্যালয় হয়েছে। তখন থেকেই সেখানে এই ধরনের অনুষ্ঠান হতে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ