স্টাফ রিপোর্টার, মালদহ: স্কুলের মিড ডে মিল নিয়ে পাহাড় প্রমাণ দুর্নীতির অভিযোগ উঠল প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে। প্রায় ৫০ লক্ষ টাকা দুর্নীতির অভিযোগ উঠে এসেছে তার বিরুদ্ধে। মালদহের চাঁচোল খরবা এগ্রিল উচ্চ বিদ্যালয়ের ঘটনা। ঘটনার তদন্তে নেমেছেন খোদ জেলাশাসক। ঘটনাস্থলে সংবাদমাধ্যমের কর্মীরা গেলে সেখান থেকে কার্যত পালিয়ে বাঁচেন প্রধান শিক্ষক হোসেন আলি।

মালদহের চাঁচোল মহকুমার অন্তর্গত খরবা এ গ্রিল উচ্চ বিদ্যালয়। অভিযোগ বেশ কয়েক বছর ধরে এই স্কুলে মিড ডে মিল নিয়ে দুর্নীতি চলছে। ছাত্র-ছাত্রীদের নিম্নমানের চাল খাওয়ানো হয়। যে চালের বেশির ভাগটাই পোকায় ভরা ও চালের মধ্যে পরে রয়েছে অসংখ্য নোংরা। যে সবজি দেওয়া হয় তার বেশির ভাগ অংশই পচা।

ছাত্র-ছাত্রী থেকে স্কুলের অন্যান্য শিক্ষক ও অভিভাবকরা এ নিয়ে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে স্থানীয় গ্রাম পঞ্চায়েত থেকে জেলা বিদ্যালয় পর্ষদ ও জেলা শাসকের কাছে বারবার অভিযোগ জানালেও কোনও লাভ হয়নি।

ফলে প্রতিদিনই সেই নিম্নমানেরই খাবার খেয়ে যাচ্ছে ছাত্রছাত্রীরা। স্কুলের প্রধান শিক্ষক হোসেন আলির নেতৃত্বে এই খাবার রান্না হচ্ছে। এখনও পর্যন্ত যে পরিমাণ দুর্নীতি করা হয়েছে প্রায় ৫০ লক্ষ টাকার দুর্নীতির সমান বলে অভিযোগ।

গোটা ঘটনা নিয়ে প্রধান শিক্ষকের সাথে বারবার যোগাযোগ করার চেষ্টা হলেও তিনি সংবাদমাধ্যমের সাথে কোন যোগাযোগ করেনি। এই খবর পান জেলাশাসক কৌশিক ভট্টাচার্য৷ তখনই তাঁর নির্দেশে ঘটনার তদন্ত শুরু হয়৷ বিডিওকে দিয়ে তদন্ত শুরু করানো হয়৷ গোটা ঘটনার উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন জেলাশাসক৷