নয়াদিল্লি: এবার থেকে সেনাবাহিনীতে স্থায়ী পদে নিযুক্ত করা যাবে মহিলাদেরও। ঐতিহাসিক রায় দিল শীর্ষ আদালত। সুপ্রিম কোর্টে জোর ধাক্কা কেন্দ্রের। স্বাধীনতার ৭০ বছর পর দেশের শীর্ষ আদালতের হস্তক্ষেপে এবার ভারতীয় সেনাবাহিনী থেকে দূর হল লিঙ্গ বৈষম্য।

সোমবার সেনাবাহিনীর স্থায়ী কমিশনড পদে মহিলাদের নিয়োগে ছাড়পত্র দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। এতদিন সেনাবাহিনীতে মহিলারা শর্ট সার্ভিস কমিশনে চাকরি পেতেন। সোমবার সেনাবাহিনীতে মহিলাদের স্থায়ী পদে নিযুক্ত করা প্রসঙ্গে রায় দিতে গিয়ে দিল্লি হাইকোর্টের নির্দেশই বহাল রাখার কথা জানিয়েছে শীর্ষ আদালত।

২০১০ সালে ভারতীয় সেনার তিন বাহিনীতেই মহিলাদের ‘পারমানেন্ট কমিশন’ দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল দিল্লি হাইকোর্ট। তারপরই এই রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে মামলা করে প্রতিরক্ষা মন্ত্রক।

আগে দিল্লি হাইকোর্টও মহিলাদের সেনাবাহিনীতে স্থায়ী কমিশনড পদে নিয়োগ করার কথা বলেছিল। সেই রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে যায় কেন্দ্র। কেন্দ্রের এই মনোভাবকে লিঙ্গ বৈষম্য করার সঙ্গেও তুলনা করেছে সুপ্রিম কোর্ট।

এমনকী কেন্দ্রের এই মনোভাবের জেরে মহিলারা অপমানিত হয়েছেন বলেও মত সুপ্রিম কোর্টের। যে মহিলা অফিসার স্থায়ী পদের জন্য আবেদন করেছেন তাঁদের আগামী তিন মাসের মধ্যে নিয়োগেরও নির্দেশ দিয়েছে দেশের সর্বোচ্চ আদালত। পুরুষদের মতোই সব শর্ত মেনে মহিলাদের নিয়োগের নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের।

সেনাবাহিনীতে স্থায়ী পদে নিয়োগের ক্ষেত্রে মহিলাদের বিপক্ষে বেশ কয়েকটি যুক্তি সাজিয়েছিল কেন্দ্র। মহিলাদের শারীরিক সক্ষমতা ও মানসিক চাপ নেওয়ার ক্ষমতা নিয়ে আদালতে সওয়াল করে কেন্দ্র।

পুরুষদের তুলনায় শারীরিকভাবে মহিলারা পিছিয়ে রয়েছেন এমন দাবি করেই সেনাবাহিনীর স্থায়ী পদে মহিলাদের নিযুক্তি নিয়ে আপত্তির কথা জানায় কেন্দ্র। কেন্দ্রীয় সরকারের এই আপত্তি আগেই নস্যাৎ হয়ে গিয়েছিল দিল্লি হাইকোর্টে।

তবে দিল্লি হাইকোর্টের সেই রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টে মামলা করেছিল কেন্দ্রীয় সরকার। এবার শীর্ষ আদালতও দিল্লি হাইকোর্টের রায়ই বহাল রাখল। সুপ্রিম রায়ে শেষমেশ সেনাবাহিনীতে দূর হল লিঙ্গ বৈষম্য।