নয়াদিল্লি : এসবিআই, পিএনবি, আইসিআইসিআই, এইচডিএফসি ও অন্যান্য ব্যাংকের ক্রেডিট ও ডেবিট কার্ড সংক্রান্ত সতর্কতা ঘোষণা করল ব্যাংকগুলি। পয়লা অক্টোবর থেকে আর কাজ করবে না এই ব্যাংকের ক্রেডিট বা ডেবিট কার্ডের বেশ কয়েকটি সুবিধা।

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের জেরে কয়েকটি বিশেষ সুবিধা এইসব কার্ডে যোগ করা হয়েছিল। স্টেট ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া, আইসিআইসিআই ও এইচডিএফসি ব্যাংক ইতিমধ্যেই তাঁদের গ্রাহকদের এই বিষয়ে সতর্ক করেছিল। অক্টোবরের শুরুতেই এই তিনটি ব্যাংকের ডেবিট ও ক্রেডিট কার্ডের বিশেষ কিছু পরিষেবার মেয়াদ শেষ হয়ে যাচ্ছে।

লকডাউনের শুরুতেই ব্যাংকগুলিকে রিজার্ভ ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া নির্দেশ দিয়েছিল আন্তর্জাতিক, অনলাইন ও কনট্যাক্টলেস ট্রানজাকশানের ওপর গুরুত্ব দিতে। সেই নিয়মকে মাথায় রেখে এই ধরণের ট্রানজাকশানে ছাড় দেওয়া হয়েছিল। এছাড়াও গ্রাহকদের পছন্দমত কার্ড বেছে নিতে বলা হয়েছিল।

তবে সেই পরিষেবা পয়লা অক্টোবর থেকে তুলে নেওয়া হচ্ছে বলে খবর। এই বিষয়টি জানিয়ে প্রত্যেক গ্রাহককে ই মেল মারফত বার্তা দিয়েছে আইসিআইসিআই, অ্যাক্সিসের মতো কয়েকটি বেসরকারি ব্যাংক। এসএমএস পাঠিয়েছে এসবিআই, পিএনবি, এইচডিএফসি।

ফলে অক্টোবরের শুরু থেকেই বড়সড় পরিবর্তন চালু করা হয়েছে। এদিকে, পয়লা অক্টোবর থেকে ব্যাংকের কিছু নিয়মেও বদল আসছে। রিজার্ভ ব্যাংক ইন্ডিয়ার তরফে বিশেষ নির্দেশ অনুযায়ী পয়লা অক্টোবর থেকে কমতে চলেছে সুদের হার। গৃহ ঋণ, গাড়ি ঋণ বা ব্যক্তিগত ঋণে সুদের হার কমবে। এতে উপকৃত হবেন দেশের লক্ষ লক্ষ ঋণ গ্রাহক।

এছাড়াও যে কর্পোরেট কর ছাড়ের কথা জানানো হয়েছিল, তাও জারি করা হচ্ছে ১লা অক্টোবর থেকেই। রিজার্ভ ব্যাংকের তরফে জানানো হয়েছে অক্টোবর মাসে ১৪দিন অর্থাৎ প্রায় অর্ধেক মাসই বন্ধ থাকবে ব্যাংক। এরই সঙ্গে আশঙ্কা থাকছে এটিএমও কাজ না করার।

অর্থাৎ ব্যাংক বন্ধ থাকার দিনগুলোতে এটিএম থেকে টাকা নাও পেতে পারেন। এই ছুটির দিনগুলোর মধ্যেই পড়ছে দ্বিতীয় ও চতুর্থ শনিবার, রবিবার গুলিও। রিজার্ভ ব্যাংক অফ ইন্ডিয়ার নির্দেশ অনুযায়ী বিভিন্ন ধর্মীয় উৎসবের দিনে ছুটি রাখা হয়েছে সরকারি ও বেসরকারি ব্যাংকগুলিতে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।