নয়াদিল্লি: সারা দেশে ফের বিদ্যুতের গতিতে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ ৷ একবার আক্রান্ত হলে সবার আগে চিকিৎসার প্রয়োজন। চিকিৎসার জন্য টাকা পয়সা আসবে কোথা থেকে? সেই ভাবনা চিন্তা কমাতে বড় পদক্ষেপ নিল দেশের সবথেকে বড় রাষ্ট্রায়ত্ত্ব ব্যাঙ্ক। ভারতীয় স্টেট ব্যাঙ্কের বিশেষ স্কীমে রয়েছে বিশেষ সুবিধা। যেখানে আপনি মাত্র ১৫৬ টাকার বিনিময়ে চিকিৎসার সুবিধা পাবেন। এই বিশেষ স্কিমের নাম করোনা রক্ষক স্কিম।

স্টেট ব্যাঙ্কের এই স্কিমের কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় –

১. এসবিআই করোনা রক্ষক স্কিম হ’ল একটি স্বাস্থ্য বীমা সুরক্ষা প্রকল্প।
২. এই পিলিসির ধারক হতে গেলে কোনও রকমের মেডিক্যাল টেস্ট হবে না
৩. ১০০ শতাংশ কভারেজ পাওয়া যাবে
৪. করোনা রক্ষক পলিসি করতে গেলে ন্যূনতম ১৮ বছর বয়স হতে হবে।
৫. ন্যূনতম প্রিমিয়াম ১৫৬ টাকা এবং সর্বাধিক ২,২৩০ টাকা।
৬. স্টেট ব্যাঙ্কের এই করোনা রক্ষক পলিসি ১০৫ দিন, ১৯৫ ও ২৮৫ দিনের।
৭. এই পলিসির ন্যূনতম কভারেজ ৫০ হাজার টাকা ও সর্বাধিক লক্ষ টাকা।
৮. করোনা পলিসির বিষয়ে বেশি পরিমাণে জানতে হলে 022-27599908-এই নম্বরে মিসড কল দিতে পারেন৷
৯. স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার করোনা রক্ষক পলিসির প্রধান বৈশিষ্ট্য হল যে সিঙ্গেল বা একটি প্রিমিয়ামেই কভারেজ সম্পন্ন হয় ৷

এই করোনা রক্ষক পলিসি সম্পর্কে আরও তথ্যের জন্য, আপনি এই লিঙ্কটি https://www.sbilife.co.in/en/individual- Life-insures/traditional/corona-rakshak -এ গিয়ে দেখতে পারেন।

উল্লেখ্য,কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের দেওয়া তথ্যানুযায়ী গত চব্বিশ ঘণ্টায় সারা দেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ লক্ষ ৮৪ হাজার ৩৭২। গত চব্বিশ ঘণ্টায় মারা গিয়েছেন ১,০২৭ জন।সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৮২,৩৩৯ জন। তবে এখনও পর্যন্ত দেশে অ্যাক্টিভ কেসের সংখ্যা ১৩,৬৫,৭০৪। সবথেকে খারাপ অবস্থা মহারাষ্ট্রের। তবে এদিন মহারাষ্ট্রে করোনার পরিস্থিতিতে গত ২৪ ঘণ্টার রিপোর্ট সামান্য স্বস্তি দিচ্ছে। মহারাষ্ট্রে গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ৫৮,৯৫২ জন। উল্লেখ্য, এর আগে মহারাষ্ট্রে দৈনিক করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ছুঁয়েছে ৬০ হাজারের গ্রাফ। মৃত্যুর সংখ্যাও ছিল একদিনে ৩০০ এর ওপর। সেখানে থেকে যে গ্রাফটা অনেকটাই নেমেছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.