নয়াদিল্লি : স্টেট ব্যাংক অফ ইন্ডিয়ার গ্রাহকরা সাবধান। এবার এটিএম থেকে টাকা তুললে দিতে হতে পারে জরিমানা। এরকমই নিয়ম কিছুদিন আগেই চালু করেছিল আইসিআইসিআই ব্যাংক, কোটাক মাহিন্দ্রা ব্যাংক, ইয়েস ব্যাংক ও এইচডিএফসি ব্যাংক। সেই পথে হেঁটেই নয়া নিয়ম চালু করল এসবিআই। ব্যাংকের গ্রাহকদের ওপর এই বিশেষ নিয়ম চালু করা হয়েছে।

এই ব্যাংকের অফিশিয়াল ওয়েবসাইট sbi.co.in-এ এই সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য দেওয়া হয়েছে। স্টেট ব্যাংক অফ ইন্ডিয়ার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে এটিএম থেকে টাকা তোলার সময় অ্যাকাউন্টের ব্যালান্সের দিকে নজর রাখতে হবে। প্রয়োজনে আগে ব্যালান্স বা অ্যাকাউন্টে কত টাকা রয়েছে তা যাচাই করে নেওয়া প্রয়োজন।

কারণ এসবিআই জানিয়েছে যদি অ্যাকাউন্টে পর্যাপ্ত ব্যালেন্স না থাকার জন্য এটিএম থেকে টাকা তোলার প্রক্রিয়াটি বাতিল হয়, তবে জরিমানা করা হবে গ্রাহককে। প্রতিটি ক্ষেত্রে জরিমানার পরিমাণ হবে ২০ টাকা, তার সাথে ধার্য করা হবে জিএসটি। ব্যাংকের তরফে জানানো হয়েছে ১০ টাকা সাথে জিএসটি থেকে ২০ টাকা সাথে জিএসটি জরিমানা করা হতে পারে।

স্টেট ব্যাংক অফ ইন্ডিয়ার পরামর্শ যদি কোনও গ্রাহক নিজের অ্যাকাউন্টে কত ব্যালেন্স রয়েছে, তা সম্পর্কে সন্দিহান হন, তবে প্রথমে ব্যালেন্স চেক করে নেওয়াই শ্রেয়। শুধু স্টেট ব্যাংক অফ ইন্ডিয়াই নয়, আইসিআইসিআই ব্যাংক, কোটাক মাহিন্দ্রা ব্যাংক, ইয়েস ব্যাংক ও এইচডিএফসি ব্যাংকও টাকা ট্রানজাকশন ব্যর্থ হলে জরিমানা করে গ্রাহকদের।

কিছুদিন আগেই স্টেট ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া বিশেষ সুবিধা আনে তাদের গ্রাহকদের জন্য। যে কোনও এসবিআই গ্রাহক এবার থেকে এটিএমে ঢুকে ডেবিট কার্ড ছাড়াই টাকা তুলতে পারবেন বলে জানানো হয়। এসবিআই জানায়, যদি তাঁদের গ্রাহকদের কাছে এসবিআই ইয়োনো অ্যাপ থাকে, তবে এইভাবে টাকা তোলা যাবে খুব সহজেই। কার্ড ছাড়াই এটিএম থেকে টাকা তোলার বিশেষ পরিষেবা দিতে শুরু করে ভারতীয় স্টেট ব্যাংক ৷ এমন ব্যবস্থায় কার্ড ক্লোনিং বা স্কিমিং-এর জালিয়াতি ঠেকানো যাবে এবং গ্রাহক তথ্য চুরির ঝুঁকি থাকবে না। গ্রাহকদের এমন সুবিধা দিতে ইয়োনো ক্যাশ ব্যবস্থা শুরু করে এসবিআই।

এই ব্যাংকের পক্ষ থেকে জানানো হয় নয়া ব্যবস্থায় এসবিআই-এর ইয়োনো অ্যাপের ব্যবহার করে দেশের ১৬,৫০০ এটিএম থেকে টাকা তুলতে পারবেন গ্রাহকরা। এটিএমগুলিতে এই পরিষেবা দেওয়ার ব্যবস্থা করতে সেগুলিকে ইয়োনো ক্যাশ পয়েন্ট নাম দেয় স্টেট ব্যাংক।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.