কলকাতা:  সুখে থাকতে কে না চান ? সকলেই চান বেশ মোটা টাকা জমিয়ে আয়েশ করে, আরাম করে থাকতে। কিন্তু এখনকার দিনে টাকা আয় করাটাই একটা বড় সমস্যা। যদি বা টাকা আয় করা গেল, মাসের খরচের কারণের তার অর্ধেকের বেশি যে কখন পকেট থেকে হাওয়া হয়ে যায় তা টেরই পান না সাধারণ মানুষ।

তবে একবার যদি টাকা জমানো শুরু করতে পারেন তাহলে কিন্তু দারুণ লাভ। টাকা পয়সা জমানোর জন্য আজকাল অনেক সহজ রাস্তা বেরিয়েছে। কেউ মনে করেন কোন প্রাইভেট সংস্থায় টাকা রাখবেন, কেউ মনে করেন ব্যাঙ্কে টাকা রাখলে তবেই ভালো।

আবার কেউ মনে করেন নিজের বাড়িতে তাঁর টাকাই সবচেয়ে ভালো। তবে অন্য উপায়ও আছে। দৈনিক ১০০ টাকা জমিয়ে আপনিও হয়ে উঠতে পারেন ৪.৫ কোটি টাকার মালিক।

লম্বা সময়ের জন্য বিনিয়োগ করা উচিৎ-  কোটিপতি হতে চাইলে অবশ্যই আপনাকে মনে রাখতে হবে, যে বিনিয়োগ করতে হবে লম্বা সময়ের জন্য। এমন কিছু সঞ্চয় রয়েছে যেখানে আপনি দৈনিক সামান্য কিছু টাকা বিনিয়োগ করে কোটিপতি হতে পারেন।

ইক্যুয়েটি মিউচুয়াল ফান্ড- বিনিয়োগ ও ট্যাক্স বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, যারা নিজেদের বিনিয়োগ কোটিতে দেখতে চান, তাঁদের পক্ষে ইক্যুয়েটি মিউচুয়াল ফান্ড খুব জরুরি। বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, একজন বিনিয়োগকারীর উচিৎ তাঁর ৩০ বছরের মধ্যে বিনিয়োগ করা।

সেক্ষেত্রে তিনি ৬০ বছর অর্থাৎ অবসর নেওয়ার আগে অবধি নির্দ্বিধায় তিনি টাকা বিনিয়োগ করতে পারবেন। অন্যদিকে রিটার্মেন্টের পর সেই টাকা তুলে নিজের প্রয়োজন মেটাতে পারবেন। বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, এক্ষেত্রে ইক্যুয়েটি মিউচুয়াল ফান্ডের এসআইপি-তেই বিনিয়োগ করা উচিৎ।

কীভাবে কোটিপতি হবেন? ট্রান্সসেন্ড কনসাল্টেন্ট-এর ওয়েলথ ম্যানেজমেন্ট ডিরেক্টর কার্তিক জাভেরী জানাচ্ছেন, এক ব্যক্তি যদি ৩০ বছরের জন্য ১৫ % হারে রিটার্ন পাবে ধরে নেওয়া হয়, সেক্ষেত্রে সহজেই লাখপতি হতে পারেন তিনি। কারণ, এই সময়ের মধ্যে তিনি মূলের ওপরে মোটা হারে সুদ পাবেন ও সুদের ওপরেও সুদ পাবেন।

কোটিপতি হওয়ার কৌশল-

– কার্তিক জাভেরীর মতে, দৈনিক ১০০ টাকা বিনিয়োগ করতেই হবে।
– ৩০ বছরের লক্ষ্যমাত্রায় বিনিয়োগ করা উচিৎ।
– বছরে ১০ % হারে যে টাকার অংক বাড়বে তাও যোগ হবে।
– ৩০ বছর পরে ম্যাচুউরিটির পরিমাণ বেড়ে দাঁড়াবে ৪ কোটি ৫০ লক্ষ ৬৬ হাজার ৮০৯ টাকা।
– মিউচুয়্যাল ফান্ডের ক্যালকুলেটর জানাচ্ছে, এই ৩০ বছরে আপনার মোট বিনিয়োগ হবে ৫৯ লাখ ১৭ হাজার ৫১২ টাকা। অর্থাৎ ম্যাচুউরিটির সময় ৩ কোটি ৯১ লক্ষ ৪৯ হাজার ২৯৭ টাকা বেশি পাবেন বিনিয়োগকারী।
– এই স্টেপ আপ রেট ব্যবহার করে এভাবে আপনি কোটিপতি হতে পারেন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।