নয়াদিল্লি: রাফায়েল যুদ্ধবিমান নিয়ে রাজ্যসভায় পেশ হওয়া ক্যাগের রিপোর্টের পর উল্লসিত গেরুয়া শিবির৷ আর তারপরই এই যুদ্ধবিমান চুক্তি নিয়ে কংগ্রেসের মিথ্যাচারের বিরুদ্ধে তেড়েফুড়ে আক্রমণে নামল শাসক দল বিজেপি৷ মুখ খুললেন অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলিও৷ ক্যাগের রিপোর্টকে ‘সত্যের জয়’ হয়েছে বলে উল্লেখ করে তিনি জানান, এই রিপোর্ট বিরোধীদের মিথ্যার হাঁড়ি ভেঙে দিয়েছে৷ যা এতদিন কংগ্রেস দায়িত্ব নিয়ে ছড়িয়ে বেরাচ্ছিল৷

রাজ্যসভায় ক্যাগ রিপোর্ট পেশ হওয়ার পর সংবাদসংস্থা এএনআইকে সাক্ষাতকারে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘‘রিপোর্টে যা বলা হয়েছে তা এতদিন সরকার বলে আসছিল৷ সরকার যে সত্যি কথাই বলছিল সেটাই উঠে এসেছে ক্যাগের রিপোর্টে৷ তবে এই রিপোর্ট বিরোধীদের ‘মহামিথ্যা’র উপর থেকে পর্দা সরিয়ে দিয়েছে৷’’

জেটলির আক্রমণের প্রধান টার্গেট ছিল কংগ্রেস৷ কারণ কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী রাফায়েল দুর্নীতি নিয়ে সবচেয়ে বেশি সোচ্চার ছিলেন৷ এদিন অরুণ জেটলি বলেন, ‘‘সুপ্রিম কোর্ট থেকে শুরু করে ক্যাগের রিপোর্টেও রাফায়েল চুক্তির পদ্ধতি নিয়ে কোনও প্রশ্ন তোলা হয়নি৷ প্রতিটি ক্ষেত্রে সরকারের জয় হয়েছে৷ কিন্তু বিষয়টি এখানেই শেষ হবে না৷ যারা দেশের মানুষকে ভুল পথে চালিত করেছে তাদের উপযুক্ত শাস্তি দেবে জনগণ৷’’ তোপ দেগে তিনি বলেন, ‘‘যেহেতু মোদীর ভাবমূর্তি স্বচ্ছ তাই বিরোধীরা ইচ্ছাকৃতভাবে অস্থির পরিস্থিতির তৈরি করতে চাইছে৷’’

এর আগে বুধবার একের পর এক ট্যুইট করে কংগ্রেস ও বিরোধীদের বাক্যবাণে বিদ্ধ করেন অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি৷ লেখেন, সত্যের জয় হয়েছে৷ বিরোধীদের জোটকে মহাঝুটবন্ধন বলে কটাক্ষ করে পরের ট্যুইটে লেখেন, ক্যাগ রিপোর্টে মহাঝুটবন্ধনের মিথ্যা ফাঁস হয়ে গিয়েছে৷ যারা দেশের সঙ্গে মিথ্যাচার করে গিয়েছে গণতন্ত্র্ এদের কীভাবে ক্ষমা করবে?

রাফায়েল যুদ্ধবিমান বর্তমান দাম ইউপিএ ঠিক করা দামের থেকে ২.৮% সস্তা। একথা উল্লেখ এমনটাই রিপোর্ট জমা পড়ল রাজ্যসভায়। আজ বুধবার এই রিপোর্ট পেশ করা হয়। যদিও এই রিপোর্টকে পক্ষপাত দুষ্ট বলে খারিজ করে দিয়েছে বিরোধীরা। তাদের দাবি এই রিপোর্টে চুক্তি সংক্রান্ত বাস্তব তথ্য কোনও ভাবেই উঠে আসেনি। আরও বলা হচ্ছে, যিনি এই রিপোর্ট তৈরি করেছেন চুক্তির সময় তিনি নিজেই অর্থ সচিব ছিলেন।