বীরভূম: বীরভূমে এখনও শেষ কথা বলেন অনুব্রত মণ্ডলই, বুধবার এ কথা ফের প্রমাণিত হল। গত মঙ্গলবার, এক প্রচারসভায় অনুব্রত মণ্ডলের নাম না করে বীরভূমের তৃণমূল প্রার্থী শতাব্দী রায় অভিযোগ করেন, কিছু কিছু পচা, বাজে গানকে যেমন বারবার চ্যানেলে দেখিয়ে হিট করে দেওয়া যায়, সেভাবেই মিডিয়া কিছু নেতাকে বারবার দেখিয়ে জনপ্রিয় করে ফেলছে। তাঁর এই মন্তব্য সম্প্রচারিত হতেই শুরু হয়ে যায় বিতর্ক। বীরভূম জেলা নেতৃত্বের সমালোচনার মুখে পরতে হয় শতাব্দীকে। যার জেরেই সম্ভবত বুধবার নিজের বক্তব্য থেকে ১৮০ ডিগ্রি ঘুরে এসে শতাব্দী বললেন, আমি এরকম কোনও কথা বলিনি। আমার বক্তব্যকে বিকৃত করা হয়েছে। এদিন সিউড়ির ১ নম্বর পৌর এলাকায় রোড শো করতে এসে এ কথা বলেন শতাব্দী।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

Comments are closed.