কলকাতা: উত্তম কুমারের চরিত্রে অভিনেতা শাশ্বত চট্টোপাধ্যায় এবং মহানায়িকা সুচিত্রা সেনের চরিত্রে ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তকে এবার দেখা যেতে চলেছে মহানায়ক উত্তমকুমারের বায়োপিকে। আর এই বায়োপিক পরিচালনায় আছেন পরিচালক অতনু বসু।

সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের পর এবার বায়োপিকে ধরা পড়বে মহানায়ক উত্তম কুমার। অতনু বসু এই নিয়ে তাঁর ২৭ তম ছবি পরিচালনা করবেন। ইন্ডাস্ট্রিতে অতনু বসুর বয়স ৩০ বছর। এর আগে মহালয়া ছবিতে উত্তম কুমারের চরিত্রে অভিনয় করেছেন যীশু সেনগুপ্ত এবং মহানায়ক ধারাবাহিকে উত্তম কুমারের চরিত্রে অভিনয় করেছেন প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়।

২০২১-এর অন্যতম বিগ বাজেটের ছবি হতে চলেছে এটি। প্রায় ৭০ জন অভিনেতা অভিনেত্রীকে কাজ করতে দেখা যাবে এই ছবিতে৷ তাই একথা বলতেই হবে এই সিনেমায় টলিউডের তাবড় তাবড় অভিনেতা-অভিনেত্রীদের অভিনয় করতে দেখা যাবে  জানা যাচ্ছে মিমি সহ আরো অনেক অভিনেতা অভিনেত্রী এই সিনেমায় অভিনয় করবেন। মহানায়কের বায়োপিকে মহানায়িকার ভূমিকায় দেখা যাবে ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তকে। গৌরীদেবীর ভূমিকায় থাকবেন শ্রাবন্তী। খোদ মহানায়কের ভূমিকায় দেখা যেতে চলেছে অভিনেতা শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়কে। ছবির নাম এখনও জানা যায়নি। তবে শীঘ্রই ছবির নাম ও কারা থাকছেন বিভিন্ন চরিত্রে তা জানা যাবে।

প্রায় ২-৩ বছর ধরে এই ছবি নিয়ে রিসার্চ করেছেন পরিচালক অতনু বোস। উত্তম কুমারের যেদিকগুলো আজ পর্যন্ত দর্শকের কাছেও অদেখা অজানা তাই উঠে আসবে এই সিনেমায়। এই নিয়ে শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে এটি পরিচালক অতনু বসুর আজ দ্বিতীয় কাজ। এর আগে অতনু বসু পরিচালিত ব্ল্যাক কফি সিনেমায় শাশ্বত চট্টোপাধ্যায় তাঁর সঙ্গে কাজ করেছিলেন।

অতনু ঘোষ পরিচালিত প্রতিটি ছবি আলাদা বুদ্ধিদীপ্ত তার মান রাখে। অতনু বসু পরিচালিত ২০১৮ মুক্তি পাওয়া আত্মজা ও দর্শকদের মন জয় করেছিল। এবার যখন মহানায়ক উত্তমকুমারের বায়োপিক নিয়ে কাজ করতে চলেছেন পরিচালক অতনু বসু তখন স্বাভাবিকভাবেই দর্শকদের মনে ও তা নিয়ে উত্তেজনা এবং এক্সপেক্টেশন তুঙ্গে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.