গুয়াহাটি: বাংলাদেশ, আফগানিস্থান, পাকিস্তানের মত প্রতিবেশি দেশগুলি থেকে অত্যাচারিত হয়ে ভারতে আশ্রয়গ্রহন করা হিন্দু , শিখ, বৌদ্ধ প্রভৃতি ধর্মের মানুষের নাগরিকতার বিষয়টিকে নিশ্চিত করার জন্য পরিবর্তিত ‘২০১৬ সিটিজেনশিপ অ্যামেন্ডমেন্ট বিল’ আনতে চেয়েছিল বিজেপি৷ সিপিএম, তৃণমূল , কংগ্রেসের মতো বিরোধীদের বিরোধিতায় সেই বিল আটকে রয়েছে সংসদে৷ তবে এবার বিলের বিরোধীতা শুরু হল খোদ বিজেপির অভ্যন্তরেই৷

অসমে অগপ-র সাহায্যে সরকার গঠন করেছে বিজেপি৷ যারা প্রথম থেকেই এই পরিবর্তিত সিটিজেনশিপ বিলের বিরোধী৷ সুত্রের খবর অসমের বিজেপি মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সেনওয়ালও ‘২০১৬ সিটিজেনশিপ অ্যামেন্ডমেন্ট বিল’-এ সায় দেননি৷ কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী রাজনাথ সিং-কে তিনি(অসমের মুখ্যমন্ত্রী) জানিয়েছেন যে এই বিলের বিরোধিতা করে আসছে সরকার সহযোগি অগপ৷ এই বিল নিয়ে উৎসাহ দেখালে তারা রাজ্যে এনডিএ সরকারের উপর থেকে সমর্থন তুলে নিতে পারে৷ সেক্ষেত্রে সংখ্যালঘু হয়ে পড়বে সরকার৷

পাশাপাশি সামনে পঞ্চায়েত এবং লোকসভা নির্বাচন রয়েছে৷ ‘২০১৬ সিটিজেনশিপ অ্যামেন্ডমেন্ট বিল’-এর বিরোধিতায় ইতিমধ্যে ৬৫টিরও বেশি সংগঠন রাস্তায় নেমেছে অসমে৷ এমন অবস্থায় বিল আনলে সামনের নির্বাচনগুলিতে ভরাডুবির সম্ভাবনা রয়েছে৷ রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে খোদ অসমের বিজেপি মুখ্যমন্ত্রীর এহেন দাবির পর কার্যত লাল ফিতের ফাঁস আরও শক্ত হল ‘২০১৬ সিটিজেনশিপ অ্যামেন্ডমেন্ট বিল’-এ৷ লোকসভা ভোটের আগে এই বিল নিয়ে যে আর কোনরকম উচ্চবাচ্য করবে না বিজেপি সে বিষয়টি একপ্রকার নিশ্চিত৷

২০১৬ সালে অগপ-র সঙ্গে জোট করে অসমে ক্ষমতায় এসেছে বিজেপি৷ এরপর অসমবাসীর বহুদিনের দাবি মেনে এনআরসি চালু করে বিজেপি সরকার৷ NRC-র (ন্যাশনাল রেজিস্টার অব সিটিজেনস অফ ইন্ডিয়া) মাধ্যমে অসমে অনুপ্রবেশকারী চিহ্নিতকরণ শুরু হয়েছে। এখনও অবধি যে কটি তালিকা বেরিয়েছে তাতে বাদ গিয়েছে প্রায় ২০ লক্ষেরও বেশি হিন্দু-বাঙালির নামও৷ বাংলাদেশ থেকে অত্যাচারিত হয়ে অসমে আশ্রয় নেওয়া হিন্দু বাঙালিদের নাগরিকতার অধিকার সুরক্ষিত করার জন্যই ‘২০১৬ সিটিজেনশিপ অ্যামেন্ডমেন্ট বিল’ আনার ব্যাপারে উদ্যোগী হয়েছিল বিজেপি৷

তবে শুধু শরণার্থী হিন্দুদের অধিকার সুনিশ্চিত করাই নয় পাশাপাশি অনুপ্রবেশকারী রোধে বিরোধীদের মুখ বন্ধ করার জন্য বিজেপির কাছে বড় হাতিয়ার হল ‘২০১৬ সিটিজেনশিপ অ্যামেন্ডমেন্ট বিল’৷ ২০১৪ সালে ক্ষমতা আসার পর বাংলাদেশ থেকে অনুপ্রবেশ আটকানোতে জোর দিয়েছে মোদীব্রিগেড। এরজন্য ১৯৫৫ সালের নাগরিকত্ব আইনে পরিবর্তন করে ‘২০১৬ সিটিজেনশিপ অ্যামেন্ডমেন্ট বিল’ আনতে চেয়েছে বিজেপি৷ যেখানে পাকিস্তান, আফগানিস্তান, বাংলাদেশ-সহ প্রতিবেশী দেশগুলি থেকে অত্যাচারিত হয়ে আসা হিন্দুদের ভারতের নাগরিকতা দেওয়ার কথা বলা হয়েছে৷

এই বিল চালু হলে বাংলাদেশ থেকে আসা মুসলিমরা অনুপ্রবেশকারী হিসেবে চিহ্নিত হবেন বলে বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন। যদিও এই বিলটি বিরোধীদের বিরোধিতায় আটকে রয়েছে৷ অন্যদিকে অসমে জাতীয় নাগরিকপঞ্জিতে নাম না থাকা মানুষদের বাংলাদেশে ফেরানোর কথা বলেছেন রাজ্যের বিজেপি নেতারা৷ বাংলা সহ বাকি রাজ্যেও NRC-র দাবি করেছেন তারা৷