গত রবিবার দ্বিতীয় সন্তানের জন্ম দেন সইফ ঘরণী করিনা কাপুর খান। মুম্বইয়ের ব্রিচ ক্যান্ডি হাসপাতালে দ্বিতীয় সন্তানের জন্ম হয়েছে  করিনার। মুম্বাইয়ের ব্রিচ ক্যান্ডি হাসপাতাল এবং বাড়ির সামনেতে পাপারাজ্জিদের ভিড় এক ঝলক দেখতে চায় তারা করিনা কাপুর খান এর দ্বিতীয় সন্তানের মুখ।
দ্বিতীয় সন্তানের জন্মের পর মঙ্গলবার তাঁকে নিয়ে বাড়িতে ফেরেন অভিনেত্রী। স্ত্রী এবং সন্তানকে বাড়িতে ফেরানোর জন্য হাসপাতালে উপস্থিত হয়ে ছিলেন সইফ আলি খান (Saif Ali Khan)। ক্ষুদে তৈমুরও বাবার হাত ধরে মঙ্গলবার হাসপাতালে হাজির হয়। রণধীর কাপুর জানান করিনার দ্বিতীয় সন্তানকে নাকি তৈমুরের মতনই দেখতে হয়েছে।
কিন্তু পাপারাৎজিদের নিরাশ করে সন্তানকে নিয়ে বাড়িতে ফিরলেও, তার মুখ দেখাননি সইফ, করিনা।হাসপাতাল থেকে বেরিয়ে চটপট গাড়িতে উঠে বাড়ির পথে রওনা হন  সইফ আলি খান এবং করিনা কাপুর খান।  নবজাতককে নিয়ে বাড়িতে ফেরার পর করিশ্মা কাপুর, সোহা আলি খান, কুণাল খেমুরা দেখতে আসেন তাঁদের। অবশ্য সেই তালিকায় দেখা মেলেনি সারা আলি খান এর।
কিন্তু বৃহস্পতিবার দুপুরে সৎ মা এবং ছোট্ট ভাইকে দেখতে সইফিনার বাড়িতে উপস্থিত  হয়ে ছিলেন সারা।বৃহস্পতিবার সইফ, করিনার (Kareena Kapoor Khan) নতুন বাড়িতে হাজির হন সারা। সারা যখন গাড়ি থেকে নামছিল তখনই তার হাতে বেশ কয়েকটি রংচঙে ব্যাগ দেখা যায়। বোঝাই  যাচ্ছিল নিজের ছোট ভাইয়ের জন্য বেশ পছন্দসই এবং দামি উপহার এনেছেন সারা।ব্যাগে উপহার নিয়েই সারা সইফ, করিনার নবজাতককে দেখতে আসেন বলে জানা যায়।
মাদক মামলার জট কাটিয়ে আতরঙ্গি রে-র শ্যুটিং করছেন সারা। অক্ষয় কুমার (Akshay Kumar) এবং ধনুষের সঙ্গে এই সিনেমায় স্ক্রিন শেয়ার করছেন সইফ-কন্যা। যদিও আতরঙ্গি-র শুটিং চলাকালীন পঞ্চাশোর্দ্ধ একজনের সঙ্গে সারা কীভাবে জুটি বাঁধতে পারেন বলে অনেকে প্রশ্ন করেন। সারার সঙ্গে অক্ষয় কুমারের জুটিকে নেটিজেন থেকে সমালোচকদের করা বিরূপ মন্তব্যের শিকার হতে হয়েছিল। সব সমালোচনার ঝড় কাটিয়ে আপাতত তারা শেষ করেছেন আর আতরঙ্গির শুটিং।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।