স্টাফ রিপোর্টার , কলকাতা : নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাশ হয়ে গিয়েছে। সেই বিলে শিলমোহরও দিয়ে দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি রাধানাথ কোবিন্দ। আর এই বিল নিয়ে আগুন জ্বলছে অসম, ত্রিপুরা-সহ বিস্তীর্ণ অঞ্চলে। রেশ পড়েছে বাংলাতেও। কলকাতা-সহ বেশ কয়েকটি জায়গায় বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেছেন সংখ্যালঘু মানুষজন। পথে নেমে আন্দোলনে সামিল হয়েছেন তারা। উলুবেড়িয়া, খড়দহ, ডায়মন্ড হারবার এবং মুর্শিদাবাদে স্থানীয়দের আন্দোলনের জেরে বিপর্যস্ত।

আন্দোলনে সামিল হয়েও শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদের আবেদন জানিয়েছেন বাংলার বিশিষ্টজনেরা। ইতিমধ্যেই মুখ খুলেছেন সাহিত্যিক শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়, নাট্যব্যক্তিত্ব রুদ্রপ্রসাদ সেনগুপ্ত, শিক্ষাবিদ কৃষ্ণা বসু, সাহিত্যিক আবুল বাশার, অভিনেতা কৌশিক সেন প্রমুখ। এবার CAB-র প্রতিবাদে নতুন করে ভাইরাল কবি শঙ্খ ঘোষের কবিতা।

তিনি লিখেছেন, আমারই হাতের স্নেহে ফুটেছিল এই গন্ধরাজ/ যে–‌কোনো ঘাসের গায়ে আমারই পায়ের স্মৃতি ছিল/ আমারই তো পাশে পাশে জেগেছিল অজয়ের জল/ আবারও সে নেমে গেছে আমারই চোখের ছোঁয়া নিয়ে/ কোণে পড়ে–‌থাকা ওই দালানে দুপুরে/ ভাঙা থামে, আমারই নিঃশ্বাস থেকে কবুতর তুলেছিল স্বর/ শালবন–‌পেরনো/ এ খোলা মাঠে মহফিল শেষে/ নিথর আমারই পাশে শুয়েছিল প্রতিপদে চাঁদ।

তোমাদের পায়ে পায়ে আমারও জড়ানো ছিল পা
তোমরা জানোনি তাকে, ফিরেও চাওনি তার দিকে
দুধারে তাকিয়ে দেখো/ ভেঙে আছে সবগুলি সাঁকো
কোনখানে যাব আর যদি আজ চলে যেতে বলো।

গোধূলিরঙিন মাচা, ও পাড়ায় উঠেছে আজান
এ–‌দাওয়ায় বসে ভাবি দুনিয়া আমার মেহমান।

এখনও পরীক্ষা চায় আগুনসমাজ
এ–‌মাটি আমারও মাটি সেকথা সবার সামনে কীভাবে প্রমাণ করব আজ।

প্রতিবাদই হয়ে ওঠে তাঁর কবিতার ভাষা। এই প্রথম নয়, এর আগেও নানান ঘটনার প্রতিবাদে কলম হাতে তুলে নিতে দেখা গিয়েছে কবি। সম্প্রতি জুনিয়র ডাক্তারদের উপর হামলা থেকে শুরু করে শিক্ষাকর্মীদের আন্দোলনের সময়ে বার বার গর্জে উঠেছে তাঁর কলম। এবার তিনি লিখলেন ক্যাব নিয়েও।

যদিও শঙ্খ ঘোষের এই কবিতাটি এখন লেখা নয়, প্রায় ১৬ বছর আগে লেখা। ২০০৪-এ প্রকাশিত ‘জলই পাষাণ হয়ে আছে’ (প্যাপিরাস) কাব্যগ্রন্থের অন্তর্ভুক্ত।