সুভীক কুন্ডু, কলকাতা: বছরের শুরু আর শেষটায় কী অদ্ভূত মিল৷

বছরের শুরুতে শেষ মরশুমের আই লিগের ফিরতি ডার্বি ম্যাচ৷ বাগানের আকাশে বাতাসে তখন সনি বিদায়ের সুর৷ গুরুতর চোট, অস্ত্রোপচারের অশনিসংকেত৷ সনিকে খেলানোর কোনও সম্ভবনাই ছিল না৷ সেই ম্যাচে ডিকাকে তুরুপের তাস করে ম্যাচ বার করেছিলেন৷ লাল-হলুদকে ২-০ গোলে হারিয়েছিল শংকরের মোহনবাগান৷ ২১ জানুয়ারির সেই ম্যাচ ময়দানের নতুন করে শংকরকে প্রতিষ্ঠা দিয়েছিল৷

বছর শেষে ফের ডার্বি৷ আরও ভালো করে বললে ফের ডার্বিতে সনিহীন বাগান৷ আবারও কোচের হটসিটে সেই শংকরলাল৷ ঠান্ডা মাথার কোচের কাছে আবারও হাইতিয়ানকে ছাড়াই মোহনবাগানকে জেতানোর চ্যালেঞ্জ৷ সেটাও লিগে বাগান যখন খাদের কিনারায়৷ পয়েন্ট টেবিলে আট নম্বর থেকে উপরে উঠতে ডার্বিই এখন শংকরের বাগানের কাছে একমাত্র সিঁড়ি৷

কোচের হটসিটে বসার পর এখনও পর্যন্ত ডার্বি হারেননি বঙ্গকোচ৷ কলকাতা লিগের শেষ ডার্বিতে অভিজ্ঞ সুভাষ ভৌমিকের সঙ্গে মতিষ্কের লড়াইয়ে ম্যাচ ড্র করিয়েছেন৷ তার আগের মরশুমের কলকাতা লিগে ডার্বিও ড্র হয়েছিল৷ স্বল্প সময়ের কোচিং কেরিয়ারে ডার্বিতে অপরাজেয় থাকার রেকর্ড থাকলেও ১৬ তারিখের ডার্বিকে নতুনভাবে দেখছেন বাগানের হেডস্যার৷

ম্যাচের ২৪ ঘন্টা আগে বাগান কোচ এদিন বলেন, ‘প্রত্যেক ডার্বির আলাদা পরিস্থিতি, আলাদা চ্যালেঞ্জ থাকে৷ আসন্ন ডার্বিকে তাই কেরিয়ারের প্রথম ডার্বি হিসেবেই দেখছি৷’