মুম্বই: একের একের পর এক তথ্য উঠে আসছে সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুকে ঘিরে। সম্প্রতি এই তদন্ত কে সিবিআই এর হাতে তুলে দিয়েছে কেন্দ্র। এই তদন্ত সিবিআই এর হাতে তুলে দেওয়ার জন্যএবার শিবসেনার সাংসদ সঞ্জয় রাউত কেন্দ্রকে কটাক্ষ করলেন। তাঁর দাবি রাজনৈতিক স্বার্থের জন্যই কেন্দ্র এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

সঞ্জয় রাউত এমনকি বিষয়টিকে মহারাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র বলে দাবি করেছেন। তিনি বলছেন এই ঘটনার সঙ্গে মহারাষ্ট্রের মন্ত্রীর নাম যুক্ত করে মহারাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেছে ভারতীয় জনতা পার্টি। রোহতকে সাপ্তাহিক কলামে সঞ্জয় রাউত লিখেছেন যে এই তদন্তটি সিবিআই এর হাতে তুলে দেওয়ার পিছনে রয়েছে বিশেষ কারণ। মূলত মহারাষ্ট্র কে আক্রমণ করার জন্যই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

তিনি বিষয়টিকে কেন্দ্রীয় সংস্থা সিবিআই এর অপব্যবহার ভুলেও দাবি করেছেন। এবং মনে করছেন তদন্তের মধ্যে কেন্দ্রের প্রবেশ করা মহারাষ্ট্রে মুম্বই পুলিশের কাছে অপমানজনক। তিনি বলছেন সিবিআই একটি কেন্দ্রীয় সংস্থা। কিন্তু এটা বোঝা যাচ্ছে যে এই সংস্থা মোটেই স্বাধীন এবং নিরপেক্ষ নয়।

সঞ্জয় রাউত এই প্রসঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের উদাহরণও দিয়েছেন। তিনি বলছেন, “বেশ কয়েকটি রাজ্য সরকার সিবিআই কে নিষিদ্ধ করেছে। সারদা চিটফান্ড মামলায় যখন সিবিআই হস্তক্ষেপ করেছিল তখন পশ্চিমবঙ্গের মানুষ এর বিরুদ্ধে রাস্তায় পর্যন্ত নেমেছিল।”

তিনি আরো বলছেন,” গুজরাটের রাজনীতিতে সক্রিয় থাকার সময় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ পর্যন্ত সিবিআইয়ের সম্পর্কে একই মত পোষণ করতেন।গোধরা কান্ড সিবিআইয়ের হাতে যাওয়ার পর তারাও এর বিরোধিতা করেছিলেন। তাহলে সুশান্ত সিং রাজপুতের তদন্ত টিম কেন্দ্রের হাতে ওঠার পর একই রকমের অভিব্যক্তি যদি প্রকাশ করা হয় তাহলে সমস্যা কোথায়?”

সংবাদমাধ্যমের সাহায্য নিয়ে বিজেপি মহারাষ্ট্র সরকার এবং শিবসেনার উদ্ধব ঠাকরেকে হেনস্থা করছেন বলেও দাবি করেছেন সঞ্জয় রাউত। তিনি বলছেন, “একটি চ্যানেল মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরের জন্য অত্যন্ত খারাপ ও হুমকি পূর্ণ ভাষা ব্যবহার করছেন।”

সঞ্জয় রাউত বলছেন, “সুশান্তের ঘটনায় কি স্ক্রিপ্ট থাকবে তা আগে থেকেই ঠিক করা ছিল। বিরোধীরা আদিত্য ঠাকরে কে এরমধ্যে জড়াচ্ছেন কারণ বলিউডের অভিনেতাদের সঙ্গে ওর সুসম্পর্ক রয়েছে। বিরোধীরা এবং কয়েকটি চ্যানেল দিশা সালিয়ান ও তার পরিবারের প্রতি খুবই অসংবেদনশীল আচরণ করছে।”

সুশান্তের মৃত্যুর আগের দিন দিনো মরিয়া আর বাড়িতে একটি পার্টি ছিল। দিনো মরিয়া সঙ্গে সুসম্পর্ক রয়েছে আদিত্য ঠাকরের। সম্প্রতি এক সাংবাদিক বৈঠকে বিজেপি নেতা নারায়ন রানে দাবি করেছেন, সুশান্তের মৃত্যুর সঙ্গে এই পার্টির যোগ রয়েছে। সঞ্জয় রাউত বলেছেন দিনোর পার্টির সঙ্গে সুশান্ত সিং রাজপুত এর মৃত্যুর কোন যোগাযোগ নেই।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও