মুম্বই-  সুশান্ত সিং রাজপুত তাঁর শেষ ছবিতে অভিনয় করেছিলেন সঞ্জনা সঙ্ঘীর সঙ্গে। আগামী মাসেই সেই ছবি মুক্তি পাবে। বিখ্যাত উপন্যাস ‘ফল্ট ইন আওয়ার স্টারস’ অবলম্বনে তৈরি এই ছবি ডিজনি হটস্টারে মুক্তি পাবে বলে জানা গিয়েছে। এবার সেই ‘দিল বেচারা’ ছবির নায়িকা সঞ্জনার বয়ানও রেকর্ড করল মুম্বই পুলিশ।

গত ১৪ জুন বান্দ্রার ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার হয় অভিনেতা সুশান্ত ঝুলন্ত দেহ। পোস্টমর্টেম থেকে প্রাথমিক তদন্ত করে পুলিশ জানিয়েছে তিনি আত্মঘাতী হয়েছেন। বেশ কিছুদিন ধরে নাকি তিনি অবসাদে ভুগছিলেন। যদিও অনেকেই দাবি করেছেন সুশান্ত মৃত্যু আত্মহত্যা নয়।

এর পিছনে অন্য কোন রহস্য রয়েছে। অবসাদে যাওয়ার পিছনেও কি কারণ রয়েছে তা নিয়ে জল্পনা চলছে। এই ঘটনার তদন্তে এখনো পর্যন্ত ২৮ জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে মুম্বাই পুলিশ। এর মধ্যে রয়েছেন সুশান্তের পরিবার বন্ধু-বান্ধব এবং কর্মসূত্রে জড়িত মানুষজন। সুশান্তের বান্ধবী রিয়া চক্রবর্তীকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন বান্দ্রা পুলিশ। জেরার মুখে তিনি জানিয়েছেন, ঝগড়া হয়েছিল তাঁদের মধ্যে।

এরপরই সুশান্তের বাড়ি ছাড়েন তিনি। সূত্রের খবর, রিয়া জানিয়েছেন যে লকডাউনে সুশান্তের বাড়িতেই একসঙ্গে থাকছিলেন তিনি। কিন্তু দিন কয়েক আগে ঝগড়া হওয়ায় সুশান্তের বাড়ি ছেড়ে চলে যান। এরপরও তঁদারে মধ্যে ফোনে ও মেসেজে কথাবার্তা চলছিল বলে জানিয়েছেন অভিনেত্রী। উল্লেখ্য, শনিবার রাতে শেষ ফোনটা রিয়াকেই করেছিলেন অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুত। যদিও ফোন ধরেননি রিয়া।

এছাড়া রিয়ার ভাই সৌভিক চক্রবর্তী কেউ জিজ্ঞাসাবাদ করেছে মুম্বাই পুলিশ। এক সর্বভারতীয় সংবাদ মাধ্যমের প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে, অভিনেত্রী রিয়ার ভাই নাকি সুশান্তের বিজনেস পার্টনার ছিলেন। আর তাই তাকে বান্দ্রা পুলিশ ইতিমধ্যেই তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে বলে জানা যাচ্ছে। সুশান্তের কোম্পানি ভিভিড্রেজ রিয়ালিটিক্স চালু হয়েছিল ২০১৯ এর সেপ্টেম্বরে। এই কোম্পানি কাজ করে ভার্চুয়াল রিয়ালিটি নিয়ে।

আর এই কোম্পানির সূত্রেই রিয়ার ভাই সৌভিক এর সঙ্গে যুক্ত ছিলেন তিনি। কোম্পানিটির পার্টনার ছিলেন সুশান্ত নিজে, রিয়া এবং রিয়ার ভাই সৌভিক চক্রবর্তী। তবে কোম্পানি খোলার সময় যে বিনিয়োগ করতে হয় তার পুরোটাই করেছিলেন সুশান্ত নিজে। ‌ এই সূত্র ধরেই বান্দ্রা পুলিশ রিয়ার ভাই সৌভিককে তলব করে।

ডিসিপি অভিষেক ত্রিমুখে নেটিজেন এবং সুশান্তের অনুরাগীদের পুলিশের উপর ভরসা রাখতে বলেছেন। তিনি বলছেন, “পুলিশ তদন্তের প্রতিটি দিককে খতিয়ে দেখছে। যদি তেমন কিছু প্রকাশ্যে আসে তাহলে পুলিশ অবশ্যই মানুষ এবং সংবাদমাধ্যমকে তা জানাবে। সোশ্যাল মিডিয়ায় বিভিন্ন রকমের তথ্য গিরে আলোচনা হচ্ছে। কিন্তু এই ব্যাপারে নিশ্চিত থাকুন যে পুলিশ কিন্তু পেশাদারিত্ব বজায় রেখে এই স্পর্শকাতর ঘটনাটির তদন্ত করছে। এই সিস্টেমের উপর ভরসা রাখুন। পুলিশ সত্যিটা সামনে আনবে নিশ্চয়ই।”

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV