মুম্বই: অভিনয় ও গ্রামার দুনিয়া ছেড়ে ধর্মের কাজে মন দিয়েছেন অভিনেত্রী সানা খান। কিছুদিন আগেই সোশ্যাল মিডিয়ায় সেই খবর নিজেই প্রকাশ করেছিলেন। জানিয়েছিলেন আর রুপোলি জগতের মোহ নয়। এবার শুধু ধর্মীয় কাজে নিজেকে উৎসর্গ করার জন্যই জীবন যাপন করবেন। আর এবার গুজরাতের মৌলানা মুফতি অনসকে বিয়ে করলেন বিগ বস খ্যাত অভিনেত্রী।

শুক্রবার এ খবর প্রকাশ্যে আসে। খবরটি হঠাৎ করে ছড়িয়ে পড়ায় অনেকেই প্রথমে অবাক হয়েছিলেন। কিন্তু পরে দেখা যায় সত্যিই মৌলানা মুফতি সঙ্গে চার হাত এক করেছেন সানা। তবে ঘরোয়া পরিবেশে পরিবার ও ঘনিষ্ঠ সদস্যদের উপস্থিতিতে বিয়ে করেন তারা। বিয়ের অনুষ্ঠানে সানা একটি সাদা রঙের গাউন পরেছিলেন। সঙ্গে ছিল সাদা হিজাব। কনের সঙ্গে পোশাকের রঙ মিলিয়ে বর পরেছিলেন সাদা রংয়ের কুর্তা পাজামা।

এদিন নবদম্পতিকে একসঙ্গে কেক কাটতে দেখা যায়। অক্টোবর মাসে হঠাৎ একদিন সোশ্যাল মিডিয়া পোষ্টের মাধ্যমে সানা জানিয়েছিলেন তিনি অভিনয় ছেড়ে এবার ধর্মে মন দিয়েছেন। জানা গিয়েছে তার স্বামী পেশায় একজন মুসলিম আলেম।

সানা সেই পোস্টে লিখেছিলেন, “জীবনের এক গুরুত্বপূর্ণ সন্ধিক্ষণে দাঁড়িয়ে আমি আপনাদের সঙ্গে কথা বলছি। বিনোদন জগতে আমি বহু বছর ধরে ছিলাম। এই সময়ে আমি ঈশ্বরের কৃপায় বহু খ্যাতি, অর্থ ও ভক্তদের থেকে ভালোবাসা পেয়েছি। যার জন্য আমি চিরকৃতজ্ঞ থাকব। কিন্তু কিছুদিন ধরেই একটা জিনিস ভাবছি, পৃথিবীতে মানুষের আসা কি অর্থ ও খ্যাতির পিছনে দৌড়নোর জন্য? দরিদ্র ও অসহায়দের জন্য কাজ করা কি কর্তব্য নয়?একজনের কি ভাবা উচিত নয় যে তিনি যে কোনও মুহূর্তে মারা যেতে পারেন?এই প্রশ্নের উত্তর আমি খুঁজে বেড়াচ্ছি। বিশেষ করে জানতে চাই মৃত্যুর পরে আমার কী হবে?”

সানা বলছিলেন, “আমার ধর্মের মধ্যে এর উত্তর খুঁজতে যাই। বুঝতে পারি, এই পৃথিবীতে জন্ম নিয়ে মৃত্যু পরবর্তী জীবনের উন্নতির জন্য কাজ করা দরকার। সৃষ্টিকর্তার নির্দেশ মতো যদি একজন ভৃত্য তাঁর জীবন যাপন করেন তাহলেই ভালো। সবসময়ে অর্থ ও খ্যাতির পিছনে ছুটলেই সেটা হয় না। বরং পাপের রাস্তা ছেড়ে সৃষ্টিকর্তার দেখানো পথেই হাঁটা উচিত।”

সপ্তম পর্বের দশভূজা লুভা নাহিদ চৌধুরী।