কলকাতা: সুখবর নাকি জল্পনা, বাগান সমর্থকরা গোটা দিন জুড়ে ধন্ধে৷ বাগানের স্পনসর নিয়ে বছর শুরুতে ধোঁয়াশাই ধোঁয়াশা৷

দিনের শুরুতে রটে যায়,মোহনবাগানে এবার কাটতে চলেছে স্পনসর সমস্যা৷ দ্রুতই বাগানের সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধতে পারে নামী এক মোবাইল প্রস্তুতকারক সংস্থা৷ কোরিয়ান মোবাইল প্রস্তুতকারক সংস্থা ‘স্যামসং’ মোহনবাগানের স্পনসর হতে পারে৷

সেই সঙ্গে বেশ কিছু নামি সংস্থা শতাব্দীপ্রাচীন ক্লাবের কো-স্পনসর হিসেবে যুক্ত হতে পারে বলে খবর রটে৷ ‘টিসিএস’ নামের সংস্থার সঙ্গে কথাবার্তাও এগিয়েছে বলেও শোনা যায়৷ এরপরই এই নিয়ে জল্পনা শুরু৷

কর্তারা অবশ্য পুরো বিষয়টি এড়িয়ে গিয়েছেন৷ বাগানের অর্থসচিব দেবাশিস দত্তের নামের এক প্রোফাইল থেকে এমন পোস্ট করা হয়৷ মুহূর্তেই বাগান সমর্থকদের মধ্যে এই খবর ছড়িয়ে পড়ে৷ খুশির খবর ছড়াতে কতক্ষণই বা সময় লাগে৷

পরে জানা যায় সেটি একেবারেই ফেক প্রোফাইল৷ বছর শুরুতে বোকা বানাতেই এমন কাণ্ড ঘটিয়েছে কোনও এক সমর্থক৷ পরে ক্লাবের অন্যতম প্রধান কর্তা সৃঞ্জয় বোস ভাইরাল হওয়া পোস্টে খবরের সত্যতা নেই বলে জানান৷ সেই সঙ্গে ঐ ফেক প্রোফাইলের মালিকের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি করেন৷ কলকাতা পুলিশের কাছে ঐ প্রোফাইলের মালিকের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হবে বলে তিনি জানান৷

চলতি ফুটবল মরশুমের শুরুতে কোয়েসের সঙ্গে গাঁটছাড়া বেঁধে চমক দিয়েছিল ইস্টবেঙ্গল৷ ৪০০ কোটির ইনভেস্টার আসার পর ফুটবলের মান থেকে ক্লাবের পেশাদারিত্ব, সবেতেই আমূল পরিবর্তন এসেছে৷ ধোঁয়াশা কাটিয়ে নতুন বছরে সত্যিই স্পনসর সমস্যা কাটিয়ে উঠে বাগানে ‘শুভারম্ভ’ হয় কিনা, সেটাই এখন দেখার৷