নয়াদিল্লি : একেই বলে রাজনীতির চাল। লোকদেখানি ঝামেলা মেটাতে একজন কুরবান হবেন, তবে তলে তলে রইবে অটুট বন্ধন। আর এই ঝামেলা, মনোমালিন্যেই লুকিয়ে থাকবে ভোট ব্যাঙ্ক ভর্তির আসল রসদ। ঠিক এরকমটাই করল যাদব পরিবার। ছেলের সঙ্গে সন্ধি করতে দিল্লি থেকে লখনউ গেলেন মুলায়ম সিংহ। ছেলের সঙ্গে কথাও বললেন আলাদা করে। তার পরেই মন্ত্রিসভা ও দলের সব পদ থেকে ইস্তফা দিলেন মুলায়মের ভাই শিবপাল যাদব। তবে মন্ত্রিসভা থেকে কাকার পদত্যাগপত্র ফিরিয়ে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী ভাইপো। আর এ ভাবেই আপাতত যুদ্ধবিরতি যাদব কূলে। আর সেটাই হল যুদ্ধ জয়ের আসল অস্ত্র।

মুলায়ম দলের ভার কাকা শিবপালের হাতে দেওয়ার পরই মন্ত্রিসভায় তাঁর সব দফতর কেড়ে নেন অখিলেশ। দফতরহীন মন্ত্রী বনে যান মুলায়মের ডান হাত হিসেবে পরিচিত শিবপাল। এ দিন ভাইপোর সঙ্গে প্রায় মিনিট পনেরো কথা হয় শিবপালের। মুলায়মও কথা বলেন ছেলের সঙ্গে। তার পরই দল ও মন্ত্রিসভা থেকে ইস্তফা দেওয়ার কথা ঘোষণা করেন কাকা। যাদব পরিবারের কলহ যে মিটে যাবে, তা নিয়ে কোনও পক্ষেরই কোনদিন সংশয় ছিল না। ধোঁয়াশা ছিল একটাই, কী হবে সেই মীমাংসা সূত্র। ইস্তফার এই ঘটনাই হয়ে রইল সেই সমাধান সূত্র।