মুম্বই: ‘বয়স কোনও ফ্যাক্টর নয়, ফিটনেসই আসল!’ আইপিএল ফাইনালে জিতে সমালোচকদের চুপ করিয়ে দিয়ে এমনটাই বলেছেন ধোনি৷ ম্যাচ শুরুর আগে এমনই বার্তা দিয়েছিলেন আরও এক সিএসকে ভক্ত৷

তিনি কোনও ক্রিকেটার নন, তিনি বলিউডের ‘ভাইজান’৷ ধোনির দলের সমালোচকদের একহাত নেন ‘দাবাং’ সলমন৷ ফাইনাল ম্যাচ শুরুর আগে ‘রেস থ্রি’ সিনেমার প্রচারে আইপিএলের প্রি ম্যাচ শোয়ে এসেছিলেন সলমন৷ ম্যাচ শুরুর আগেই সেই অনুষ্ঠানেই সলমনকে ধোনির দলের গড় বয়স ৩০-র বেশি হওয়া নিয়ে মতামত দিতে বলা হয়৷

ক্রিকেটার ইরফান পাঠানের সেই প্রশ্নে একেবার দাবাং মেজাজে ব্যাটিং করেন সাল্লু৷ ৫৩ বছরের বলিউড তারকা জানান, ‘আপনি কী বলছেন! ৩০ বছর বয়সে কেউ অবসর নেয় নাকি? অবসর নেওয়ার ওটা কোনও বয়স হল?’

চলতি আইপিএলের শুরু থেকে চেন্নাইয়ের দলগঠন নিয়ে ক্রিকেটমহলের চর্চা ছিল তুঙ্গে৷ অনেকেই সমালোচনার সুরে বলেছেন, ‘বুড়োদের দল গড়েছে চেন্নাই৷’ টি-টোয়েন্টির খুনখারাপি ক্রিকেটের যুগে তরুণদের না বেছে নিয়ে বুড়োদের বেছে নেওয়ায় অনেকেই ভ্রু কুঁচকেছেন৷ ফাইনাল ম্যাচে চেন্নাইয়ের ১১ ক্রিকেটারের মধ্য সাতজনের বয়স ছিল ৩০ প্লাস৷ সেই নিয়েও সোশ্যাল মিডিয়ায় চর্চা ছিল তুঙ্গে৷

বেশি বয়সীদের নিয়ে দল গড়ে ট্রফি জিততে অবশ্য সিএসকে’র কোনও সমস্যা হয়নি৷ দলের গড় বয়স ৩০ এর বেশি মানে দলে অভিজ্ঞতা অনেক বেশি, শুরু থেকে এই ধারণাকে গুরুত্ব দিয়ে এসেছেন সুপারকিংস কাপ্তান ধোনি৷  ফাইনালেও দলে অভিজ্ঞ ক্রিকেটার থাকার সুফল পেয়েছে চেন্নাই৷

সেমিফাইনালে যেখানে রশিদের স্পিন ভেল্কির সামনে একে একে উইকেট ছুঁড়ে দিয়ে এসে ম্যাচ হেরেছিল কেকেআর৷ সেখানে ফাইনালে সানরাইজার্সের রশিদকে সামলে খেললেন রায়না-রায়ডুরা৷ ফাইনালের আগের রশিদের বিরুদ্ধে এই দুজনের স্ট্রাইক রেট ছিল ১৫০ এর বেশি৷

এসব পরিসংখ্যানই বলে দেয় অভিজ্ঞতার ডানায় চেপেই ফাইনালের রানওয়েতে সফল হয়েছে সুপারকিংস৷ বুড়ো হারে চেন্নাইকে তৃতীয়বারের জন্য আইপিএল ট্রফি জয়ের স্বাদ এনে দিয়েছেন অস্ট্রেলিয়ান শেন ওয়াটসন৷ তাঁর বয়স কিন্তু ৩৭ ছুঁইছুঁই৷ জুনের ১৭ আসলে ৩৬ টপকে ৩৭এ পা দেবেন ওয়াটসন৷ যার থেকে সল্লু মিয়া বয়স আবার ১৯ বছর বেশি৷

সলমন সত্যি ঠিকই বলেছেন, ৩০ বছর বয়সে কেউ অবসর নেয় নাকি! ৩৭ এর দোরগোড়ার দাঁড়িয়ে আইপিএল শতরান হাঁকিয়ে সলমনের কথাটাই যেন প্রমাণ করে দিলেন ওয়াটসন৷