মুম্বই- টেলিভিশনের সবচেয়ে জনপ্রিয় রিয়্যালিটি শো বিগবস ভাবাই যায় না সলমন খানকে ছাড়া। কিন্তু পরের সিজন থেকে নাকি সঞ্চালকের ভূমিকায় দেখা যাবে না তাঁকে। সলমনের ঘনিষ্ঠ সূত্রের খবর অনুযায়ী, সলমনও মনে করছেন এবারের সিজনে সিদ্ধার্থ শুক্লাকে জেতানোর জন্য পক্ষপাতিত্ব করা হয়েছে।

বিগবস ১৩-র বিরুদ্ধে একাধিকবার পক্ষপাতিত্বর অভিযোগ উঠেছে। এমনকী, এই শোয়ের প্রাক্তন সদস্যরাও বলেছেন সিদ্ধার্থ শুক্ল যে জয়ী হবেন তা আগে থেকেই ঠিক করা ছিল। এবার সেই একই অভিযোগ নাকি সলমনের তরফ থেকেও। উইকেন্ড কা বার-এও এই নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন সলমন।

পিঙ্কভিলার কাছে সলমনের এক ঘনিষ্ঠ সূত্র জানাচ্ছেন, সলমন খান মনে করছেন এবারের গোটা সিজন জুড়ে সিদ্ধার্থ শুক্লার জেতানোর জন্য পক্ষপাতিত্ব করা হয়েছে। এমনকী, সিদ্ধার্থকে বিজেতা ঘোষণা করা নিয়ে নাকি চ্যানেলের উপরেও অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন সুপারস্টার। আর তাই ১২ টা বেজে যাওয়ার পরে বিজেতা কে, তা ঘোষণা করা হয়েছে। আর তাই সলমন পরের সিজন থেকে এই শোয়ের অংশ হবেন না।

তবে এই প্রথম নয়। এর আগেও শোনা গিয়েছিল, সলমন খান এই শোয়ের অংশ থাকতে চান না। তবে সিদ্ধার্থ শুক্লার জয় নিয়ে খুশি নন অনেকেই। এমনকী, কালার্স টিভিরই এক কর্মী ফেরিহাও দাবি করেন আসিম ও সিদ্ধার্থ একই পরিমাণ ভোট পেলেও সিদ্ধার্থকেই জয়ী ঘোষণা করা হয়েছে। যদিও কালার্স টিভি এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে এবং জানিয়েছে ওই তরুণী তাদের সংস্থার অংশ নন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।