স্টাফ রিপোর্টার, হাওড়া: মঙ্গলবার দ্বিতীয় দিনে পড়ল হাওড়ার শালিমার পেইন্টস কারখানায় শ্রমিকদের ধর্ণা৷ চাকরির দাবিতে সোমবার সকাল থেকে কারখানার গেটের সামনে সপরিবার ধর্নায় বসেছেন এখানকার শ্রমিকরা। সমস্যা না মেটা পর্যন্ত এই কর্মসূচি চলবে বলে হুমকি দিয়েছেন শ্রমিকরা। পাশাপাশি, মঙ্গলবার সকালে সংসার চালাতে অর্থ সংগ্রহের জন্য পথে নামেন ওঁরা৷ দাবি না মেটা পর্যন্ত ভোট বয়কটের হুমকি দেওয়া হয়েছে৷

বছর পাঁচেক আগে আগুন লেগেছিল হাওড়ার শালিমার পেন্টস কারখানায়। এরপর আর কাজ ফিরে পাননি শ্রমিকরা। এবার তাই চাকরির দাবিতে ধর্ণায় বসেছেন শ্রমিকরা। গত ২০১৪ সালের মার্চ মাসে বিধ্বংসী আগুন লাগে হাওড়ার নাজিরগঞ্জের শালিমার পেন্টসের কারখানায়। সেই আগুনে বিপুল ক্ষয়ক্ষতি হয়। এরপর থেকেই শতাধিক কর্মীর জীবনে নেমে আসে অন্ধকার।

এই নিয়ে ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে বারবার আলোচনা হলেও কারখানা চালু করা নিয়ে টালবাহানা শুরু হয়। ২০১৭ সালের মার্চ মাসে ত্রিপাক্ষিক বৈঠক হয়। সেই বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয় সাত দিনের মধ্যে কারখানা চালু করা হবে। প্রথমে ২০জনকে কাজে নেওয়া হবে। তারপরে ৩ মাসের মধ্যে সমস্ত কর্মীকে কাজে নেওয়া হবে।

কিন্তু সেই চুক্তি রক্ষা করেনি কর্তৃপক্ষ। ৬ মাস পর মাত্র সাতজন কর্মীকে পুনরায় কাজে বহাল করা হয়। সেই থেকে এখন পর্যন্ত আর কোনও কর্মীকে কাজে নেওয়া হয়নি। পাশাপাশি, শ্রমিকদের অভিযোগ রাতের অন্ধকারে বাইরে থেকে লোক এনে কারখানায় উৎপাদনের কাজ চালাচ্ছে কর্তৃপক্ষ।

সংস্থার সেলস অফিসার, গোডাউন অফিসার প্রভৃতি কর্মীদের কাজ থাকলেও শুধুমাত্র উৎপাদনের সঙ্গে যুক্ত শ্রমিকদের কাজে নেওয়া হয়নি। যতদিন কাজ ফিরে না পাবেন ততদিন এইভাবেই কারখানার গেটের সামনে ধর্ণা চলবে বলে হুমকি দিয়েছেন শালিমার পেন্টসের হাওড়ার নাজিরগঞ্জের কারখানার কর্মহীন শ্রমিকরা। গেটের সামনে ধর্ণামঞ্চ থেকে তাঁরা বলেন ‘আমরা খেতে না পাওয়া ভুখা শ্রমিক৷ আমাদের অর্থ সাহায্য করুন৷’