নয়াদিল্লি: রিও অলিম্পিকে ব্রোঞ্জ পদক জয়ী সাক্ষী মালিকের উপর আস্থা হারাল কেন্দ্রীয় ক্রীড়ামন্ত্রক। টোকিও অলিম্পিকে সাক্ষীর পদক জয়ের সম্ভাবনা কম বিবেচনা করে তাঁকে ছেঁটে ফেলা হল টার্গেট অলিম্পিক পোডিনাম প্রকল্প থেকে। পরিবর্তে সদ্য সমাপ্ত বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপ থেকে ব্রোঞ্জ পদক ছাড়াও দেশকে অলিম্পিকের টিকিট এনে দেওয়া রবি দাহিয়াকে টপ স্কিমের অন্তর্ভুক্ত করা হল।

রিও অলিম্পিকে ব্রোঞ্জ জয়ের পর লম্বা একটা বিরতি নিয়েছিলেন সাক্ষী। ফিরে আসার পর ধারাবাহিকভাবে ব্যর্থ হয়ে চলেছেন তিনি। কাজাকাস্তানের নুর সুলতানে অনুষ্ঠিত বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপের প্রথম রাউন্ড থেকেই বিদায় নিতে হয় অলিম্পিক পদকজয়ী তারকাকে। ক্রমাগত খারাপ ফর্মের কথা বিবেচনা করেই সাক্ষীকে কেন্দ্রীয় ক্রীড়ামন্ত্রকের এই প্রকল্প থেকে বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় স্পর্টস অথরিটি অফ ইন্ডিয়া সংক্ষেপে সাইয়ের মিশন অলিম্পিক সেল।

অন্যদিকে, বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপের ৫৭ কেজি বিভাগে ব্রোঞ্জ পদক জেতেন রবি দাহিয়া। সেই সুবাদে তিনি টোকিও অলিম্পিকের ছাড়পত্রও আদায় করে নেন। স্বাভাবিকভাবেই অলিম্পিকে পদক প্রাপ্তির সম্ভাবনা থেকে তাঁকে টপ স্কিমের অন্তর্ভুক্ত করা হয়। উল্লেখ্য, টার্গেট অলিম্পিক পোডিয়াম প্রকল্পের অন্তর্ভুক্ত ক্রীড়াবিদরা প্রস্তুতির জন্য মাসিক ৫০ হাজার টাকা অনুদান পায় ক্রীড়ামন্ত্রকের তরফে। সাক্ষী মালিক ছাড়াও টপ স্কিম থেকে বাদ পড়েছেন ভারত্তোলক রাগালা ভেঙ্কট রাহুল।

সাইয়ের মিশন অলিম্পিক সেল আরেক কুস্তিগীর পূজা ধান্দার নিজের শহরে রোমানিয়ান কোচ ফানেল কার্পের অধীনে প্রশিক্ষণ নেওয়ার আবেদন মঞ্জুর করেছে। ভারত্তোলক মীরাবাঈ চানু টোকিও অলিম্পিক পর্যন্ত নিজের সঙ্গে একজন ফিজিওথেরাপিস্ট রাখার জন্য আর্থিক আনুকূল্য চেয়েছিলেন। কমিটি তাঁর আবেদন মঞ্জুর করেছে।

এছাড়া শাটলার সমীর বর্মাকে অক্টোবর-নভেম্বরে তিনটি আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে অংশ নেওয়ার জন্য আর্থিক অনুদান দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মিশন অলিম্পিক সেল। সরকারি টাকাতেই ডাচ ওপেন, ম্যাকাও ওপেন ও কোরিয়া মাস্টার্সে অংশ নেবেন সমীর। ডিসেম্বর পর্যন্ত সাতটি টুর্নামেন্টে সাইনা নেহওয়াল তাঁর ফিটনেস ট্রেনারকে সঙ্গে রাখার আবেদন করেছিলেন। সঙ্গত কারণেই তাঁর আবেদন মঞ্জুর হয়েছে।