দুবাই: মঙ্গলবার মরুশহরে বঙ্গসন্তান ঋদ্ধিমান সাহার ব্যাটে ঝড় দেখেছেন ক্রিকেট অনুরাগীরা। কিন্তু ব্যাটিং’য়ের পরবর্তী অধ্যায়টা বিশেষ সুখের হল না বঙ্গসন্তান এবং তাঁর ফ্র্যাঞ্চাইজির জন্য। দিল্লি ক্যাপিটালসকে হারিয়ে প্লে-অফের লড়াইয়ে আশা জাগিয়ে রাখলেও ঋদ্ধিমান সাহার কুঁচকির চোটে আশঙ্কার বাতাবরণ সানরাইজার্স হায়দরাবাদ শিবিরে। ম্যাচের পর পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে দলনায়ক ডেভিড ওয়ার্নার ঋদ্ধির চোটের খবর শেয়ার করে নেন প্রকাশ্যে।

উল্লেখ্য, বেশ কয়েকটি ম্যাচ পর মঙ্গলবার টুর্নামেন্টের প্লে-অফের টিকে থাকার লড়াইয়ে ঋদ্ধিকে উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান হিসেবে দলে সুযোগ দেয় হায়দরাবাদ ম্যানেজমেন্ট। আর ব্যাট হাতে ওপেনিংয়ে নেমেই উপেক্ষার জবাব দেন বঙ্গসন্তান। কিন্তু ৪৫ বলে ৮৭ রানের বিস্ফোরক ইনিংস খেলার পরে উইকেটকিপিং গ্লাভস হাতে আর মাঠে নামতে পারেননি পাপালি (ঋদ্ধির ডাকনাম)। পরিবর্তে উইকেটেরপিছনে দেখা যায় দলের আরেক বঙ্গসন্তান শ্রীবৎস গোস্বামীকে।

পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে এসে ঋদ্ধির চোট প্রসঙ্গে হায়দরাবাদ অধিনায়ক ওয়ার্নার জানান, ‘এটা আমাদের কাছে ভীষণই দুর্ভাগ্যের বিষয় যে ঋদ্ধিমান কুঁচকিতে সামান্য চোট পেয়েছে। তবে আশা করি সেটা অশনি সংকেত হয়ে দেখা দেবে না। শঙ্করেরও হ্যামস্ট্রিংয়ে সামান্য সমস্যা হয়েছে।’ এক সূত্র মারফৎ বিসিসিআই’য়ের এক আধিকারিক ঋদ্ধির চোট সম্পর্কে জানিয়েছেন, ‘আপাত দৃষ্টিতে ঋদ্ধির চোট খুব একটা গুরুতর বলে মনে হচ্ছে না। সানরাইজার্সের আগামী ম্যাচের আগে (বনাম আরসিবি ৩১ অক্টোবর) হাতে দিন তিনেকের সময়ও রয়েছে। আশা করা যায় সব ঠিক হয়ে যাবে।’

বাকি ম্যাচগুলি সানরাইজার্সের প্লে-অফে যোগ্যতা অর্জনের নিরিখে ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ হলেও ঋদ্ধিকে বিশ্রাম দেওয়ার কথাও ভাবা যেতে পারে। অর্থাৎ, সব দেখেশুনেই বঙ্গসন্তানকে খেলানোর সিদ্ধান্ত নেবে সানরাইজার্স ম্যানেজমেন্ট। সেক্ষেত্রে দল প্লে-অফে যোগ্যতা অর্জন না করলে এবারের মতো আইপিএল শেষও হয়ে যেতে পারে বঙ্গসন্তানের। কারণ লিগ পরবর্তী অস্ট্রেলিয়া সফরে টেস্ট দলে রয়েছেন ঋদ্ধি। তাই পুরোপুরি ফিট না হয়ে তাঁকে মাঠে নামানোর ঝুঁকি কোনওভাবেই নেওয়া হবে না।

মঙ্গলবার ম্যাচের পর দলের তারকা স্পিনার রশিদ খানের সঙ্গে একটি ইন্টারভিউতে দেখা যায় ঋদ্ধিকে। সেখানেও তাঁর চোটের বিষয়ে আলোকপাত করা হয়। যদিও সতীর্থ আফগান স্পিনারকে ঋদ্ধি বলেন আশা করি খুব শীঘ্রই চোট সারিয়ে মাঠে ফিরতে পারব।

জেলবন্দি তথাকথিত অপরাধীদের আলোর জগতে ফিরিয়ে এনে নজির স্থাপন করেছেন। মুখোমুখি নৃত্যশিল্পী অলোকানন্দা রায়।