তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: পরিবেশ সকলের৷ তাই তা রক্ষা করার ভারও সকলেরই কাঁধে নেওয়া উচিৎ৷ এমন বার্তাই দিলেন মমতা-সরকারের মন্ত্রী শ্যামল সাঁতরা৷ মিশন নির্মল বাংলা৷ কোদাল, ঝাঁটা হাতে সাফাই অভিযানে দেখা গেল মন্ত্রীকেও৷ অভিনব এই মুহূর্তের সাক্ষী থাকলেন বাঁকুড়ার কোতুলপুর এলাকার মানুষ।

দলের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে নিয়ে সাফাই অভিযানে নামলেন এলাকার বিধায়ক ও রাজ্যের মন্ত্রী শ্যামল সাঁতরা। শনিবার কোতুলপুর নেতাজি মোড় সংলগ্ন বাসস্ট্যান্ড এলাকা সাফাইয়ে নিজে হাত লাগান তিনি। এলাকা পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখার আবেদনের পাশাপাশি প্লাস্টিক বর্জনের অনুরোধও জানান মন্ত্রী৷

বন্যাপ্রবণ এলাকা হিসেবে চিহ্নিত কোতুলপুর এলাকায় ফি বছর বর্ষায় কম বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। নিয়মিত প্লাস্টিক ব্যবহার করে তা ফেলার ফলে পাকা ড্রেনের মুখগুলি বুজে যায়। ফলে জলনিকাশী ক্ষেত্রে সমস্যা দেখা দেয়। এদিন মন্ত্রী শ্যামল সাঁতরা এলাকার ব্যবসায়ীদের কাছে প্লাস্টিক না ব্যবহার করার জন্য আবেদন জানান।

তিনি বলেন, কোতুলপুরের প্রাণকেন্দ্র হল নেতাজি মোড়। একই সঙ্গে মাতৃমন্দির জয়রামবাটি যাওয়ার মূল প্রবেশ পথও এই নেতাজি মোড়। প্রতিদিন অসংখ্য পর্যটক এই পথ দিয়ে যাতায়াত করেন। প্লাস্টিক বর্জনের আবেদনের পাশাপাশি তিনি স্থানীয় ব্যবসায়ীদের ২৪ ঘণ্টাই এলাকাকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার আবেদন জানান।

একই আবেদন জানান কোতুলপুর ব্লক তৃণমূল সভাপতি প্রবীর গড়াইও৷ সাফাই কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে তিনি বলেন, বর্ষাকালের শুরু হলেই কোতুলপুর এলাকার বিস্তীর্ণ অংশ প্লাবিত হয়ে যায়। সে কারণেই প্রশাসনের তরফে এখানকার সেচ, নালা-সহ অন্যান্য ড্রেনগুলি সংস্কারের কাজ শুরু হয়েছে।

প্লাস্টিক ও প্লাস্টিকজাত দ্রব্য ব্যবহার করে যত্রতত্র ফেলে দেওয়ায় সেচ নালা ও ড্রেনগুলি বুজে যাচ্ছে। এই অতিরিক্ত প্লাস্টিক ব্যবহারই বন্যাপরিস্থিতির অন্যতম কারণ দাবি করে তিনিও প্লাষ্টিক ব্যবহার না করতে সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষকে অনুরোধ জানিয়েছেন৷