মুম্বই: অস্ট্রেলিয়ার ফেডারেল কোর্ট থেকে ব্যাট প্রস্তুতকারক সংস্থা স্পার্টানের বিরুদ্ধে মামলা তুলে নিলেন সচিন রমেশ তেন্ডুলকর। ব্যাটিং গ্রেটের কাছে ক্ষমা চেয়ে নেওয়ায় স্পার্টানের বিরুদ্ধে মামলার বিষয়টি প্রত্যাহার করেছেন মাস্টার-ব্লাস্টার।

বছর কয়েক আগে সিডনি জাত এই সংস্থাটির সঙ্গে দশ বছরের একটি চুক্তি হয়েছিল সচিন তেন্ডুলকরের। চুক্তি অনুযায়ী বার্ষিক ১ মিলিয়ন ডলারের পরিবর্তে তাঁদের কিটে সচিনের নাম-ছবি লোগো হিসেবে ব্যবহারের অনুমতি পায় সংস্থাটি। চুক্তির নাম দেওয়া হয়েছিল ‘সচিন বাই স্পার্টান’। সব ঠিকঠাকই চলছিল কিন্তু সমস্যা শুরু হয় ২০১৯ সেপ্টেম্বরে। চুক্তি মোতাবেক ওই সময় থেকে রয়্যালটির অর্থ পাচ্ছিলেন না মুম্বইকর।

যদিও স্পার্টান তাঁর বিজ্ঞাপনী প্রচারে সচিনের নাম-ছবি ব্যবহার ক্রমেই চালিয়ে যাচ্ছিল সংস্থাটি। স্বাভাবিকভাবেই সচিনের তরফ থেকে সংস্থার সঙ্গে যোগাযোগ করে রয়্যালটির অর্থ না পাওয়ার বিষয়টি জানানো হয়। তবে সচিনের সেই কথায় সেভাবে কর্ণপাত করেনি স্পার্টান। এরপরই সংস্থার বিরুদ্ধে সচিন আইনি পথে হাঁটার কথা ভাবেন। রয়্যালটির অর্থ তাঁকে না দিয়ে তাঁর নাম-ছবি ব্যবহার করার বিষয়টি মোটেই মেনে নিতে পারেননি মাস্টার-ব্লাস্টার। শেষমেষ চরম সিদ্ধান্ত নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার ফেডারেল কোর্টে স্পার্টানের বিরুদ্ধে মামলা করেন তিনি।

এরপরই টনক নড়ে অস্ট্রেলিয়ার ব্যাট প্রস্তুতকারক সংস্থার। সম্প্রতি এক বিবৃতি মারফৎ সচিনের কাছে দুঃখপ্রকাশ করে স্পার্টান। সংস্থার সিইও লেস গ্যালব্রেথ এক বিবৃতিতে জানান, ‘সচিনের সঙ্গে চুক্তি বজায় রাখতে ব্যর্থ হওয়ায় আমরা ক্ষমাপ্রার্থী। সমস্যা সমাধানে উনি যে পরিমাণ ধৈর্য্য ধরেছেন, তা দৃষ্টান্তমূলক।’ একই সঙ্গে ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ থেকে কিংবদন্তির সঙ্গে তাঁদের চুক্তি শেষ হয়েছে বলে জানায় সংস্থাটি।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প