নয়াদিল্লি: মধ্যপ্রদেশের ছায়া এবার রাজস্থানে। গোয়ালিয়রের মহারাজ জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া দলের সঙ্গে সংঘাতের জেরে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন। সেই ক্ষত শুকোয়নি এখনও।

এবার কংগ্রেসের আরও এক উপ মুখ্যমন্ত্রীকে ঘিরে বাড়ছে জল্পনা। রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী গেহলটের সঙ্গে বিরোধ প্রকাশ্যে এসেছে সম্প্রতি। সূত্রের খবর, ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন।

সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের দাবি, আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বিজেপিতে যোগ দেবেন তিনি। সম্ভবত বিজেপি প্রেসিডেন্ট জেপি নাড্ডার উপস্থিতিতে বিজেপিতে যোগ দেবেন তিনি।

এছাড়া সচিন পাইলট ইতিমধ্যেই দাবি করেছেন, ৩০ জন বিধায়ক রয়েছেন তাঁর সঙ্গে। বিজেপিও বলছে যে তারা বিষয়টাতে ভালোভাবে নজর রাখছে।

রবিবার সন্ধ্যায় বিজেপি নেতা জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়ার সঙ্গেও দেখা করেছেন বিক্ষুদ্ধ কংগ্রেস নেতা সচিন পাইলট। রাজস্থানের কংগ্রেস মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলটের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা করে দিল্লিতে হাই কমান্ডের সঙ্গে দেখা করতে যান সচিন। তবে তাঁর আশা পূরণ হয়নি।

ইন্ডিয়া টুডের সূত্র বলছে এই পরিস্থিতিতে সিন্ধিয়ার সঙ্গে দেখা করাটা বেশ জল্পনা উসকে দিচ্ছে। সিন্ধিয়ার সঙ্গে পাইলটের প্রায় ৪০ মিনিট কথা হয়। আলোচ্য বিষয় মূলত ছিল রাজস্থানের রাজনৈতিক অচলাবস্থা ও সচিন পাইলটের রাজনৈতিক ভবিষ্যত। এমনই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

রবিবার ট্যুইট করেন সিন্ধিয়া। প্রাক্তন সহকর্মীর সঙ্গে সমবেদনা প্রকাশ করেন তিনি। তিনি লিখেছেন, ‘সচিন পাইলটকে দেখে খারাপ লাগছে। ওকেও দলে কোনঠাসা করছেন মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলট। আসলে কংগ্রেসে মেধার জায়গা খুবই কম।’

বিজেপি সরকার উল্টে দেওয়ার চেষ্টা করছে বলে সাংবাদিক বৈঠক করে শনিবার অভিযোগ করেছিলেন গেহলট। তারপর ২৪ ঘণ্টা ঘুরতেই খোদ রাজ্যের উপমুখ্যমন্ত্রী সচিন পাইলটের গুরুতর অভিযোগের মুখে পড়লেন মুখ্যমন্ত্রী।

মাস তিনেক আগে কমল নাথের সঙ্গে সঙ্ঘাতে দল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেন মধ্যপ্রদেশের তরুণ নেতা জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া। এতে রাজ্যের শাসনভারই হারাতে হয়েছে কংগ্রেসকে। তাই এক্ষেত্রেও কংগ্রেস সিঁদুরে মেঘ দেখছে কংগ্রেস।

প্রশ্ন অনেক: তৃতীয় পর্ব