রাইপুর: ‘সচিন পাইলট এখন বিজেপিতে’, আনুষ্ঠানিকভাবে এখনও গেরুয়া শিবিরে নাম লেখাননি পাইলট। তার আগেই দলেরই নেতার অবস্থান স্পষ্ট করলেন ছত্তীসগড়ে এআইসিসি-র দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা পিএল পুনিয়া। কংগ্রেসে প্রত্যেক নেতা ও কর্মীকে তাঁদের প্রাপ্য সম্মান দেওয়া হয়, এব্যাপারে বিজেপির থেকে সার্টিফিকেট নেওয়ার কোনও প্রয়োজন নেই বলে মনে করেন এই কংগ্রেস নেতা।

মধ্যপ্রদেশের ছায়া এবার রাজস্থানেও। গোয়ালিয়রের মহারাজ জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া দলের সঙ্গে সংঘাতের জেরে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন। সেই ক্ষত শুকোয়নি এখনও। এবার কংগ্রেসের আরও এক উপ মুখ্যমন্ত্রীকে ঘিরে বেড়েছে জল্পনা।

রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলটের সঙ্গে বিরোধের জেরে উপ-মুখ্যমন্ত্রী সচিন পাইলটের বিজেপিতে যোগের সম্ভাবনা জোরালো হচ্ছে। সচিন পাইলট ইতিমধ্যেই দাবি করেছেন, ৩০ জন বিধায়ক রয়েছেন তাঁর সঙ্গে। রবিবার সন্ধেয় বিজেপি নেতা জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়ার সঙ্গেও দেখা করেছেন বিক্ষুদ্ধ কংগ্রেস নেতা সচিন পাইলট।

তবে এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে বিজেপিতে যোগ দেননি সচিন পাইলট। রাজস্থানেই নয়া আঞ্চলিক দলও তিনি গড়তে পারেন বলে কোনও কোনও মহল থেকে মনে করা হচ্ছে। তবে এব্যাপারেও স্পষ্ট করে কিছু জানাননি সচিন। তবে আনুষ্ঠানিকভাবে কংগ্রেস না ছাড়লেও সচিনকে এখনই গেরুয়া শিবিরে ঠেলে দিলেন তাঁরই দলের নেতা পিএল পুনিয়া।

ছত্তীসগড়ে এআইসিসি-র দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা পুনিয়া। সংবাদসংস্থা এএনআই-কে তিনি বলেন, ‘সচিন পাইলট এখন বিজেপিতেই আছেন। কংগ্রেসের সঙ্গে বিজেপি কী আচরণ করে তা মানুষ জানেন। কংগ্রেসে সব নেতা ও কর্মীকে তাঁদের প্রাপ্য সম্মান দেওয়া হয়। এব্যাপারে বিজেপির থেকে কোনও সার্টিফিকেট নেব না।’

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ