নয়াদিল্লি : রবিবার সন্ধ্যায় বিজেপি নেতা জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়ার সঙ্গে দেখা করলেন বিক্ষুদ্ধ কংগ্রেস নেতা সচিন পাইলট। কিছুদিন আগেই কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেন জ্যোতিরাদিত্য। এদিকে, রাজস্থানের কংগ্রেস মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলটের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা করে দিল্লিতে হাই কমান্ডের সঙ্গে দেখা করতে যান সচিন। তবে তাঁর আশা পূরণ হয়নি।

ইন্ডিয়া টুডের সূত্র বলছে এই পরিস্থিতিতে সিন্ধিয়ার সঙ্গে দেখা করাটা বেশ জল্পনা উসকে দিচ্ছে। সিন্ধিয়ার সঙ্গে পাইলটের প্রায় ৪০ মিনিট কথা হয়। আলোচ্য বিষয় মূলত ছিল রাজস্থানের রাজনৈতিক অচলাবস্থা ও সচিন পাইলটের রাজনৈতিক ভবিষ্যত। এমনই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

এর আগে, রাজস্থানের তরুণ কংগ্রেস নেতা সচিন পাইলটের বিদ্রোহতে সায় দেয়নি কংগ্রেস হাইকমান্ড। কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্বের নির্দেশ ছিল রবিবার রাতের মধ্যেই পাইলটকে জয়পুর ফিরে যেতে হবে। কাজ করতে হবে মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলটের অধীনেই। রাজস্থানের রাজনৈতিক অচলাবস্থার এভাবেই মীমাংসা করতে চেয়েছিল কংগ্রেস হাইকমান্ড। জয়পুর ফিরে সচিন পাইলট দলের পর্যবেক্ষকদের সঙ্গে দেখা করবেন বলে নির্দেশ দেওয়া হয়।

উল্লেখ্য, অজয় মাকেন, রণদীপ সুরজেওয়ালা ও অবিনাশ পান্ডেকে রাজস্থানের পর্যবেক্ষক হিসেবে নিয়োগ করেছে কংগ্রেস। সোমবার সকাল ১০ টায় মুখ্যমন্ত্রীর বাসবভনে কংগ্রেস সংসদীয় দলের একটি বৈঠক রয়েছে। তবে সূত্রের খবর, সেই বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন না সচিন পাইলট। রবিবারই রাজস্থানের তিন পর্যবেক্ষক অজয় মাকেন, রণদীপ সুরজেওয়ালা ও অবিনাশ পান্ডের একটি চার্টার্ড প্লেনে উড়ে গিয়েছেন রাজস্থান।

মুখ্যমন্ত্রী গেহলটের ডাকা বৈঠকে যোগ দেওয়ার কথা রয়েছে তাঁদের। সোমবারও বৈঠক করবেন গেহলট। চলবে বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতির পর্যালোচনা। এর আগে, এর আগে রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী গেহলট তাঁকে ক্রমাগত কোণঠাসা করে চলেছেন বলে দলের হাইকমান্ডের কাছে বিস্ফোরক অভিযোগ আনেন রাজস্থানের প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি তথা রাজ্যের উপমুখ্যমন্ত্রী সচিন পাইলট।

নিজের ক্ষোভের কথা জানাতে দিল্লি পৌঁছে যান তিনি। দেখা করেন কংগ্রেস হাই কমান্ডের সাথে। গোটা ঘটনায় কিছুটা হলেও ঘি ঢালতে চেয়েছেন সদ্য কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে আসা জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া। তিনি ট্যুইট করে প্রাক্তন সহকর্মীর সঙ্গে সমবেদনা প্রকাশ করেন তিনি।

তিনি লিখেছেন, ‘সচিন পাইলটকে দেখে খারাপ লাগছে। ওকেও দলে কোনঠাসা করছেন মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলট। আসলে কংগ্রেসে মেধার জায়গা খুবই কম।’ এই ট্যুইটের রেশ ধরেই রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের প্রশ্ন জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়ার মতোই শচিন পাইলটকে হারাবে না তো কংগ্রেস?

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ