মুম্বই: তিনি বাইশ গজের বাদশা৷ তিনি ক্রিকেটঈশ্বর৷ তিনি হলেন সচিন রমেশ তেন্ডুলকর৷ তিনি বিশ্বের একমাত্র ব্যাটসম্যান, যাঁর ব্যাট থেকে এসেছে শততম আন্তর্জাতিক সেঞ্চুরি৷ কিন্তু আধুনিক ক্রিকেটের ‘ডন’ সচিনের ব্যাটে প্রথম আন্তর্জাতিক সেঞ্চুরিটি এসেছিল ২৯ বছর আগে আজকের দিনেই৷

১৬ বছর বয়সে টেস্ট অভিষেকেই নজর কেড়েছিলেন সচিন৷ ১৯৮৯-এর নভেম্বরে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে টেস্ট অভিষেকেই বিকশিত হয়েছিল সচিনের প্রতিভা৷ বাকি ২৪ বছর ব্যাট হাতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট শাসন করেছেন সাড়ে পাঁচ ফুটের এই মারাঠি৷ রচনা করেছেন ইতিহাস৷ এই গ্রহের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে ১০০টি আন্তর্জাতিক সেঞ্চুরি এবং প্রথম ও একমাত্র ক্রিকেটার হিসেবে ২০০টি টেস্ট খেলার নজির এবং টেস্ট ও ওয়ান ডে ক্রিকেটে সর্বাধিক রান এবং সেঞ্চুরির মালিকের নাম সচিন তেন্ডুলকর৷ নিজের অজান্তেই একের পর রেকর্ড ভেঙে হয়ে উঠেছেন বাইশ গজে জীবন্ত কিংবদন্তি৷

১৪ অগস্ট, ১৯৯০ মাত্র ১৭ বছর বয়সে প্রথম আন্তর্জাতিক সেঞ্চুরির স্বাদ পেয়েছিলেন লিটল মাস্টার৷ ম্যাঞ্চেস্টার টেস্টে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে সচিনের ১১৯ রানের অপরাজিত ইনিংস দিয়ে কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান হয়ে ওঠার বীজ বপন হয়েছিল৷ প্রথম ইংল্যান্ড সফরেই দারুণ ব্যাটিং করে ভারতের মান উঁচু করেছিলেন সচিন৷ ৪০৮ রান তাড়া করে গিয়ে ১০৯ রানে ৪ উইকেট হারিয়েছিল ভারত৷ তারপর ক্যাপ্টেন মহম্মদ আজহারউদ্দিন এবং কপিল দেব প্যাভিলিয়নে ফেরায় ১৮৩ রানে ৬ উইকেট হারায় টিম ইন্ডিয়া৷

এই অবস্থায় জয়ের গন্ধ পেতে শুরু করে ইংল্যান্ড৷ কিন্তু একাই ইংরেজদের জয়ে বাধা হয়ে দাঁড়ান সচিন৷ সপ্তম উইকেটে মনোজ প্রভাকরের সঙ্গে সচিনের ১৬০ রানের পার্টনারশিপে ম্যাচ বাঁচায় ভারত৷ ডেভন ম্যালকম, অ্যাঞ্জাস ফ্রেসার, ক্রিস লুইস ও এডিল হেমিংসের বিরুদ্ধে ১৭ বছরের এক তরুণের লড়াকু ব্যাটিং বিশেষজ্ঞদের নজর কেড়েছিল৷ ম্যাঞ্চেস্টার টেস্টের প্রথম ইনিংসেও সচিনের ব্যাট থেকে এসেছিল ৬৮ রান৷

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পরের ২৩ বছরে ৯৯টি সেঞ্চুরি আসে সচিনের ব্যাট থেকে৷ প্রায় আড়াই দশক ধরে সরা বিশ্বের বোলারদের শাসন করেন সচিন৷ ওয়াসিম আক্রম, ওয়াকার ইউনিস, শেন ওয়ার্ন, কার্টলি অ্যামব্রোজ, অ্যালান ডোনাল্ডের বিরুদ্ধে নিজের প্রতিভার পরিচয় দিয়ে একের পর এক রেকর্ড ভেঙেছেন সচিন৷ টেস্টে ৫১টি এবং ওয়ান ডে ক্রিকেটে ৪৯টি শতরানের মালিক আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নেন ১৬ নভেম্বর, ২০১৩৷