মুম্বই: ‘যিনি রাঁধেন তিনি চুলও বাঁধেন’। এনার ক্ষেত্রে কথাটা একটু অন্যরকম হবেই। হতে পারে, ‘যিনি ব্যাট ধরেন সেই হাতেই তিনি রাঁধেন’। হ্যাঁ, একশো সেঞ্চুরির মালিক রেঁধে বেড়ে খাইয়ে পালন করলেন আন্তর্জাতিক নারী দিবস। তাঁর মা’কে নিজে রান্না করে খাওয়ালেন এবং ভিডিও পোস্ট করলেন সোশ্যাল মিডিয়ায়।

অমুকের রান্নাঘর, তমুক দিদির রান্নার বই। বাদ দিন, চলে আসুন মাস্টার ব্লাস্টারের ‘রসোইখানায়’। যেখানেও তিনি যথারীতি উপস্থিত কাট, স্ট্রেট ড্রাইভ, সুইপ , পুল, হুকে। ক্রিকেটের ছন্দেই যেন রাঁধলেন সচিন তেন্ডুলকর। রান্না করে খাওয়ালেন তাঁর জীবনের সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ মহিলাকে। পালন করলেন আন্তর্জাতিক নারী দিবস। শুক্রবার আন্তর্জাতিক নারী দিবস একটু অন্য রকম ভাবেই উদযাপন করেন সচিন তেন্ডুলকর। এ দিন তিনি নিজের জীবনের সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ নারীর জন্য রান্না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন এবং তা করেও দেখালেন। নিজের টুইটার হ্যান্ডলে শেয়ার করা একটি ভিডিওয় দেখা গেল তিনি মায়ের জন্য রান্না করছেন। কি রান্না করলেন সচিন? বেগুনের ভর্তা। হতে পারে নামটা বেগুন কিন্তু সচিনের হাতের তৈরি খাবার বলে কথা সে খাবার গুণে ভরা হতে বাধ্য। তিনি বলছেন, “আজ আমি আমার মায়ের পছন্দের বেগুনভর্তা বানাচ্ছি”।

মাস্টার ব্লাস্টার রান্না ঘরে ঢুকে রীতি মতো শেফে পরিণত হয়েছিলেন। ছোটবেলায় তিনি এই ভূমিকাতেই তাঁর মা’কে দেখেছেন। এদিন তিনি সেই স্মৃতিকথা ভাগ করে নিয়েছেন নেটিজেনদের সঙ্গে। সচিন টুইটারে নিজের রান্নাঘর এবং রান্না করার ভিডিওটি শেয়ার করে লিখেছেন, “এই #WomenDay-তে আসুন আমাদের জীবনে গুরুত্বপূর্ণ মহিলাদের জন্য বিশেষ কিছু করি। আমার সঙ্গে যোগ দিন এবং #SheherSmile Happy Women’s Day ট্যাগ ব্যবহার করে আপনার নিজের সুমিষ্ট নিবেদনের মুহূর্তগুলো শেয়ার করুন!”

সচিন যেমন ব্যাট করতে ভালবাসেন তেমনই রান্না করতেও ভালবাসেন। খেতে ভালোবাসেন ‘সি ফুড’। প্রসঙ্গত ১৯৯৭-৯৮ সালে অজয় জাদেজার বাড়িতে ভারতীয় ক্রিকেট দলের সব প্লেয়ারদের জন্য নিজে হাতে রেঁধেছিলেন সচিন। সে বারও তিনি বানিয়েছিলেন নিজেরই অন্যতম প্রিয় ভারতীয় পদ- বেগুনের ভর্তা। এই বছর নিউ ইয়ার্স পালনের জন্য বাড়িতে একটা পার্টি দিয়েছিলেন সচিন। ভারতীয় ক্রিকেট দলের অনেক তারকাই ছিলেন সেই পার্টিতে। সেখানেই সবার জন্য বার-বি-কিউ বানিয়েছিলেন তিনি।

সচিনের শ্বাশুড়ি অ্যানাবেলের একবার জানিয়েছিলেন অবসরের পর তাঁর জামাই কো করতে পারেন। তিমি মজার ছলে জানিয়েছিলেন, ‘শারীরিকভাবে আগের মতোই ফিট থাকতে হবে ওকে৷ আমি নিশ্চিত নই৷ তবে মনে হয়, আমার মেয়ে অঞ্জলি, মানে ওর স্ত্রী সচিনকে ঘরের কাজে লাগাবার মতলব করেছে৷’ কী ধরণের কাজ? অ্যানাবেলের মজার উত্তর ছিল, ‘সচিন রান্নাবান্নায় বেশ আগ্রহী৷ নিজের হাতে বিভিন্ন সময়ে রান্নাও করেছে৷ আমার মেয়ে রান্নার ব্যাপারে একদমই উত্‍সাহী নয়৷ সে কাজটা হয়তো সচিন করবে।”

রান্নাঘরে ক্রিকেটঈশ্বরের কেরামতি দেখতে ভিডিও লিঙ্কে ক্লিক করুন…

বেগুন ভর্তায় ‘নারী দিবস’ পালন মাস্টার ব্লাস্টারের

বেগুন ভর্তায় ‘নারী দিবস’ পালন মাস্টার ব্লাস্টারেরবিস্তারিত পড়তে ক্লিক করুন https://bit.ly/2HmC4Ed

Kolkata24x7 यांनी वर पोस्ट केले शुक्रवार, ८ मार्च, २०१९