নয়াদিল্লি: ভারতের প্রথম অনলাইন রিটেল সংস্থা খুলে চমকে দিয়েচিলেন সচিন বনশল ও বিন্নি বনশল। আজ তাঁদের সংস্থা ওয়ালমার্ট কিনে নিলেও, ফ্লিপকার্টের জনপ্রিয়তা কমেনি এতটুকুও। আর সেই সংস্থার অন্যতম ফাউন্ডার সচিনের বিরুদ্ধেই উঠল ভয়ঙ্কর অভিযোগ। পনের জন্য স্ত্রী’কে মারধরের অভিযোগ উঠেছে তাঁর বিরুদ্ধে।

শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের অভিযোগ জানিয়েছেন তাঁর স্ত্রী প্রিয়া বনসল৷ প্রিয়ার অভিযোগ, তাঁদের সন্তানকেও সচিনের নির্যাতনের মুখে পড়তে হয়েছে৷

২৮ ফেব্রুয়ারি বেঙ্গালুরুর কোরমাংলা থানায় প্রিয়া সাত পাতার একটি অভিযোগপত্র জমা দেন৷ তিনি জানিয়েছেন,‘‘সচিন তাঁর সামাজিক সুখ্যাতির অপব্যবহার করছেন৷ দিনের পর দিন সন্ত্রস্ত হয়ে রয়েছি আমি৷” প্রিয়া আরও বলেন,‘‘আমাদের বিয়ে হয়েছিল ২০০৮ সালে৷ তারপর থেকেই আমাদের শারীরিক ও মানসিক ভাবে নির্যাতন করা হত৷ আমার স্বামী, শ্বশুর শ্বাশুড়ি পণের জন্যে শারীরিক ও মানসিক ভাবে অত্যাচার চালিয়ে গিয়েছে৷’’

প্রিয়ার অভিযোগ, বিয়ের আগেও তাঁর বাড়িতে পন চেয়ে হাজির হতেন শ্বশুরবাড়ির লোকজন। আর বিয়ের পর থেকেই শুরু হয় অত্যাচার। তিনি আরও জানিয়েছেন, তাঁর বোন রাধিকা যখন দিল্লিতে যান, তন সচিন তাঁকে যৌন হেনস্থা করেছেন।

ধূমধাম করে বিয়ে হয়েছিল সচিন-প্রিয়ার৷ প্রিয়ার অভিযোগ, বিয়েতে কী পড়তে হবে, কোন গয়না গায়ে উঠবে সবই ঠিক করে দেওয়া হয়েছিল সচিনের পরিবার থেকে৷ বিয়েতে ৫০ লক্ষ টাকা পণ নেন সচিন৷ তার পরে ধাপে ধাপে আরও ১১ লক্ষ টাকা দেওয়া হয়৷ তবু অত্যাচার থামেনি৷

তদন্তকারী অফিসাররা জানিয়েছেন, তদন্ত শুরু হয়েছে তবে এখনও গ্রেফতার করা যায়নি ফ্লিপকার্টের প্রতিষ্ঠাতা সদস্যকে৷