কলকাতা:  ক্রমশ দলের থেকে দূরত্ব বাড়ছে সব্যসাচী দত্তের। একের পর এক বিস্ফোরক মন্তব্য দলের নেতা-মন্ত্রীদের বিরুদ্ধে। যা নিয়ে ক্রমশ চাপ বাড়ছিল তৃণমূলের অন্দরে। শেষমেশ অনাস্থা এনে বিধাননগর পুরসভার দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হয় সব্যসাচী দত্তকে। এরপর থেকে দলের সঙ্গে আরও দূরত্ব বেড়েছে প্রাক্তন মেয়রের। এই অবস্থায় বিজেপি যোগের জল্পনা বাড়িয়ে দিল্লি উড়ে গিয়েছেন সব্যসাচী। এই অবস্থায় তাঁকে কোনঠাসা করতে আরও কড়া ব্যবস্থা নিল তৃণমূল নেতৃত্ব। তাঁর বিধানসভা কেন্দ্রে বাড়তি দায়িত্ব দেওয়া হল তাপস চট্টোপাধ্যায়কে।

রাজারহাট-নিউ টাউন বিধানসভা কেন্দ্রে ‘দিদিকে বলো’ কর্মসূচির দায়িত্ব দেওয়া হয় বিধাননগর পুরসভার ডেপুটি মেয়র তাপস চট্টোপাধ্যায়কে। এই বিধানসভার বিধায়ক সব্যসাচী দত্ত। কিন্তু তাঁকে না দিয়ে দায়িত্ব দেওয়া হল সব্যসাচীর বিরোধী গোষ্ঠী বলেই রাজনৈতিকমহলে পরিচিত তাপস চট্টোপাধ্যায়কে। রাজনৈতিকমহলের মতে, সব্যসাচীর সঙ্গে আরও দূরত্ব বাড়াতে চায় তৃণমূল। আর সেজন্যেই এই মুহূর্তের সবথেকে বড় কর্মসূচি থেকেও এবার সব্যসাচী দত্তকে ছেঁটে ফেলল তৃণমূল।

বিধাননগর পুরসভার ডেপুটি মেয়র তাপস চট্টোপাধ্যায় বলেন, দলের শীর্ষ নেতৃত্ব তাঁকে রাজারহাট-নিউটাউন এলাকায় দিদিকে বলো এবং জনসংযোগ কর্মসূচি পালন করার নির্দেশ দিয়েছে। সেই মতো আজ শনিবার রাজারহাট-বিষ্ণুপুর ১ নং গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার ভাতেন্ডায় এই অনুষ্ঠান হয়। সমাজের পাঁচ বিশিষ্টজনের তালিকাও দল থেকে দেওয়া হয়েছে। তাঁদের বাড়িও যাওয়া হবে। আবার দিদিকে বলোর কার্ডও বিলি করা হবে বলে জানিয়েছেন তাপস চট্টোপাধ্যায়।

উল্লেখ্য, বিধায়কের অনুপস্থিতিতে রাজারহাটে দলের ব্লক সভাপতি প্রবীর কর আগেই দিদিকে বলো অনুষ্ঠান শুরু করে দিয়েছিলেন। তাই নতুন করে কেন তাপসবাবুকে দায়িত্ব দেওয়া হচ্ছে। দলীয় সূত্রের দাবি, প্রবীরবাবু এলাকায় সব্যসাচী দত্তের ঘনিষ্ঠ বলেই পরিচিত। তাই দল বাইরে থেকে তাপসবাবুকে দায়িত্ব দিল। তাঁর বিধানসভা এলাকায় তাপসবাবুকে দায়িত্ব দেওয়া নিয়ে প্রশ্ন করা হলে সব্যসাচীবাবু বলেন, দলের শীর্ষ নেতাদের কেউ সাংবাদিক সম্মেলন করে একথা জানালে তিনি ভাবতেন। তাপসবাবুর সাংবাদিক সম্মলেন নিয়ে তিনি কিছু ভাবতে বা বলতে চান না।