স্টাফ রিপোর্টার, বারাসত: তিনি দলে আছেন, না নেই৷ ভোটের আগে তা নিয়ে তৃণমূলের অন্দরেই ছিল জোড় জল্পনা৷ ভোটের ফল বের হতেই অবশ্য বিস্ফোরক মন্তব্য করে জল্পনা উসকে দিলেন বিধাননগরের মেয়র সব্যসাচী দত্ত৷ নাম না করে ‘পচা আলু’ বলে কটাক্ষ করলেন বিধাননগরের বিধায়ক ও মন্ত্রী সুজিত বসুকে৷

বুধবার বারাসতে মেয়র বলেন, ‘‘পচা আলুতেই আলুরদমের স্বাদ বাড়ে। ভোটের আগে অনেকে বলেছিল পচা আলুকে সরিয়ে রাখতে হয়। আমার মনে হয়েছে, আমি সেই পচা আলু। ফলাফল বলে দিচ্ছে পচা আলুতেই স্বাদ বাড়ে। আর টাটকা আলু হরকে গেল৷”

আরও পড়ুন: ভাইপোকে বাঁচাতে মোদীর শপথে যাচ্ছেন মমতা, বিস্ফোরক অর্জুন সিং

কেন হঠাৎ সব্যসাচী দত্তের এই কটাক্ষ৷ দলের গোষ্ঠী রাজনীতিতে সব্যসাচী ও সুজিত ভিন্ন মেরুর৷ সেই বিবাদ তুঙ্গে ওঠে মেয়রের বাড়ি বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের ‘লুচি আলুর দম’ অপ্যায়ণে৷ তাঁকে ডেকে বৈঠক করেন সুব্রত মুখোপাধ্যায়, ফিরহাদ হাকিম সহ উত্তর ২৪ পরগনা জেলা তৃণমূল নেতারা৷ সেখানেই সব্যসাচীকে বলতে শোনা যায় তিনি দলে ছিলেন, আছেন, থাকবেন৷ কিন্তু বিতর্ক থামেনি৷

ভোটের সময় তৃণমূল সুপ্রিমোর ঘোষণা ছিল, প্রতিটি তৃণমূল বিধায়ক, কাউন্সিলরকে তাদের কেন্দ্র থেকে লোকসভার প্রার্থীকে জয়ী করতে হবে৷ কৌতুহল ছিল মেয়র কী পারবেন তাঁর ওয়ার্ড ও বিধানসভা কেন্দ্র রাজারহাট নিউটাউন থেকে কাকলী ঘোষ দস্তিদারকে জেতাতে৷ ভোটের ফলেই স্পষ্ট সবকিছু৷ দেখা যায় রাজারহাট নিউটাউন বিধানসভা থেকে তৃণমূল লিড পেয়েছেন ২৩ হাজার ৬০০ ভোটে৷ উলটে বিধাননগর বিধানসভায় হেরেছেন কাকলী দেবী৷

এরপরও গত কয়েকদিনে অবস্থার বদল হয়নি৷ জেলার ৫টি লোকসভার মধ্যে মধ্যে ২টি বিজেপির দখলে৷ দলের খারাপ ফলের জন্য পর্যালোচনা বৈঠকেও ডাক পাননি সব্যসাচী দত্ত৷ এরপরই এদিন তিনি কটাক্ষ ছুঁড়ে দেন দলীয় সতীর্থের দিকে৷ বলেন, ‘‘যিনি নিজের ওয়ার্ডে জিততে পারেন না, উনি আবার বারাসাত লোকসভার কান্ডারি ছিলেন।আমি যেখানে থাকি সেই বিধান নগরে হেরেছে দল,।আর ওনার দায়িত্ব বাড়ছে, এটাই বাংলার ট্রেন্ড।আগামী দিনে উনি অল ইন্ডিয়ার লিডার হবেন৷’’

বাংলায় গেরুয়া শিবিরের সাফল্য প্রসঙ্গে তৃণমূল সুপ্রিমো ইভিএন কারচুপির অভিযোগ করেছেন৷ কিন্তু দলের বিধায়ক ও মেয়র মনে করেন, ‘‘এটা মানুষের ভোট, মানুষের রায়’’৷ কেন বিপর্যয় হল তৃণমূলের? তাঁর ব্যাখ্যা, ‘‘শুধুমাত্র সাইরেন বাজিয়ে ঘুরে বেড়ালেই হয় না৷ কাজ করতে হয়৷’’

আরও পড়ুন: ছেলে জয়ী হলেও সংসদে ছেলের পাশে বসবেন না হেমা

সম্প্রতি বিধাননগরের মেয়রের আতিথিয়তায় তৈরি হয়েছে ‘নবজাগরণ মঞ্চ৷’ তাতে রয়েছেন তৃণমূলের প্রাক্তন রাজ্যসভার সাংসদ কুণাল ঘোষ, জাতীয়বাদী তৃণমূলের সভাপতি অমিতাভ মজুমদাররা৷ সেদিন প্রকাশ্যে কিছু না বললেও এদিন অবশ্য ‘নবজাগরণ মঞ্চ’ নিয়ে মুখ খোলেন বিধাননগরের মেয়র৷ তিনি বলেন, ‘‘এই মঞ্চ রাজ্যের অবহেলিত, নির্যাতিত, পুলিশের হাতে আক্রান্ত মানুষদের পাশে দাঁড়াবে৷’’

সুজিত-সব্যসাচী ফাটল যে আরও চওড়া তা পরিষ্কার৷ এবার তা এল প্রকাশ্যে৷ ফলে মাথাব্যাথা বাড়ল তৃণমূল নেতৃত্বের৷

পচা আলুতেই স্বাদ বাড়ে, নাম না করে সুজিতকে নিশানা সব্যসাচীর

ভোটের ফল বের হতেই অবশ্য বিস্ফোরক মন্তব্য করে জল্পনা উসকে দিলেন বিধাননগরের মেয়র সব্যসাচী দত্ত৷ নাম না করে ‘পচা আলু’ বলে কটাক্ষ করলেন বিধাননগরের বিধায়ক ও মন্ত্রী সুজিত বসুকে৷https://www.kolkata24x7.com/sabyasachi-dutta-on-sujit-basu.html

Kolkata24x7 यांनी वर पोस्ट केले बुधवार, २९ मे, २०१९