কেপটাউন: করোনা আবহেই সারা বিশ্বে শুরু হয়েছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট৷ কোভিড টেস্টের রিপোর্ট নেগেটিভ আসার পরই মাঠে নামার সুযোগ পান ক্রিকেটাররা৷ কিন্তু প্রোটিয়া ক্রিকেটারের কোভিড টেস্টের রিপোর্ট পজিটিভ আসায় শুক্রবার বাতিল হয়ে গেল দক্ষিণ আফ্রিকা-ইংল্যান্ড ওয়ান ডে সিরিজের প্রথম ওয়ান ডে৷

নিউল্যান্ডসে টস হওয়ার ঘন্টাখানেক আগে প্রোটিয়া শিবিরে এক ক্রিকেটারের কোভিড টেস্টের রিপোর্ট পজিটিভ আসে৷ সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে তড়িঘড়ি বাতিল করা হয় দক্ষিণ আফ্রিকা-ইংল্যান্ডের প্রথম ওয়ান ডে ম্যাচ। পরে এই ম্যাচের সূচি জানানো হয়৷ সিরিজের প্রথম ওয়ান ডে হবে রবিবার একই ভেন্যুতে৷

ইসিবি ও ক্রিকেট সাউথ আফ্রিকার তরফে এক যুগ্ম বিবৃতিতে জানানো হয়, ‘ইসিবি ও সিএসএ সিরিজের প্রথম ওয়ান ডে বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ প্রোটিয়া দলের এক ক্রিকেটারের কোভিড-১৯ টেস্টের রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। ওয়ান ডে সিরিজের আগে নির্ধারিত সূচি মেনেই বৃহস্পতিবার এই টেস্ট করা হয়েছিল। দুই দলের নিরাপত্তার খাতিরে ক্রিকেট সাউথ আফ্রিকার কার্যকরী সিইও কুগানড্রিয়ে গোভেনদার, ইসিবি-র সিইও টম হ্যারিসন এবং ম্যাচ অফিসিয়ালরা সিরিজের প্রথম ম্যাচ রবিবার শুরু করার ব্যাপারে সম্মত হয়েছেন।’

এই সিরিজের আগে দুই দল তিন ম্যাচের টি-২০ সিরিজ খেলেছে৷ মঙ্গলবার শেষ হওয়া তিন ম্যাচের টি-২০ সিরিজ ৩-০ জিতে নিয়েছে ইংল্যান্ড৷ কিন্তু ওয়ান ডে সিরিজ শুরুর আগেই বিপত্তি৷ এদিন নিউল্যান্ডসে নির্ধারিত সময়ে ইংল্যান্ডের টিমবাস পৌঁছয়৷ ম্যাচের প্রস্তুতি হিসেবে মাঠে নামতে যাওয়ার মুখেই আটকানো হয় ইংল্যান্ড ক্রিকেটারদেরো৷ তখনই তাঁদের ফেরত পাঠানো হয় দলের বায়ো-সিকিউর বেস কেপটাউনের ভিনেয়ার্ড হোটেলে। পরে নেটের জন্য দক্ষিণ আফ্রিকার ডেভিড মিলার ও আন্দিলে ফেহলুকায়ো মাঠে এলেও তাঁদেরও দ্রুত ফেরত পাঠানো হয়। এর আগে কোভিড পরীক্ষায় এই দুই ক্রিকেটারের রিপোর্ট পজিটিভ এসেছিল বলে জানা গিয়েছে।

দুই বোর্ডের সম্মতিক্রমে সিরিজের পরিবর্তিত সূচি জানানো হয়৷ তিন ম্যাচের সিরিজই হবে৷ শুক্রবার, সোমবার ও বুধবারের পরিবর্তে ম্যাচ তিনটি হবে রবিবার, সোমবার ও বুধবার৷ প্রথম ম্যাচটি হবে পার্লের বোল্যান্ড পার্কে৷ এটি হবে ডে ম্যাচ৷ তবে পরের দু’টি ম্যাচ হবে নিউল্যান্ডসে৷ এই দু’টি ম্যাচ হবে ডে-নাইট৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।