মস্কোঃ  ভূমি থেকে আকাশে নিক্ষেপযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা এস-৩০০ সিরিয়াকে সরবরাহ শুরু করেছে মস্কো। এমনটাই জানিয়েছেন রাশিয়ার বিদেশমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ।

সোমবার প্রতিরক্ষা দফতরে সের্গেই শোইগু জানান, দুই সপ্তাহের মধ্যে সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদের বাহিনীকে দুই সপ্তাহের মধ্যে ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা দেওয়া হবে। আমেরিকা ও ইজরায়েলের আপত্তির মুখেই সিরিয়াকে এই অস্ত্র দেওয়ার ঘোষণা দেয় রাশিয়া। এই ঘোষণা করার এক সপ্তাহ আগে রাশিয়া অভিযোগ করে, সিরিয়ায় রুশ সামরিক বিমান ধ্বংস করার ঘটনায় ইজরায়েল পরোক্ষভাবে দায়ী।

অন্যদিকে রাষ্ট্রসংঘে এক সংবাদ সম্মেলনে রুশ বিদেশমন্ত্রী বলেন, এরই মধ্যে সরবরাহ করা শুরু হয়ে গিয়েছে। ওই ঘটনার পর প্রেসিডেন্ট পুতিন বলেছেন যে পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে তাতে সিরিয়ায় আমাদের সেনাদের শতভাগ নিরাপত্তা ও সুরক্ষা নিশ্চিত করবে। কোনও রাজনৈতিক সংস্কার ছাড়াই ক্ষমতায় রাখতে দেশটির দীর্ঘদিনের গৃহযুদ্ধে আসাদকে সমর্থন ও সযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে রাশিয়া। তাদের সঙ্গে যুক্ত আছে ইরানও।

রাষ্ট্রসংঘের শান্তির আলোচনা থেমে যাওয়ায় ইরান, তুরস্ক ও রাশিয়া আস্তানা প্রক্রিয়া নামে নিজেরাই শান্তি আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে। কূটনীতিকরা মনে করছেন, ইজরায়েলি ঘটনা ও ইদলিবে সংঘাত এড়াতে রুশ-তুর্কি চুক্তির ফলে সিরিয়ার সংঘাত নিরসনে রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের ২২৫৪ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের সুযোগ তৈরি করেছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.