মস্কো:  আরও শক্তিশালী রাশিয়া। একেবারে সফল ভাবে হাইপারসনিক ক্রুজ মিসাইল ছুঁড়ল মস্কো। একেবারে দেশীয় প্রযুক্তিতে এই মিসাইল তৈরি করেছে রাশিয়া। সফলভাবে এই মিসাইল পরীক্ষা করার জন্যে রুশ বাহিনীকে স্যালুট জানিয়েছেন রাশিয়ান প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

একই সঙ্গে রুশ বাহিনীর প্রশংসা করে পুতিন বলেছেন, হাইপারসনিক ক্ষেপণাস্ত্র তৈরির ফলে দেশের নিরাপত্তা আরও জোরদার হবে। ইতিমধ্যে রাশিয়ার অস্ত্র ভান্ডারে একগুচ্ছ হাইপারসনিক মিসাইল রয়েছে। তবে রাশিয়ান সামরিক বিজ্ঞানীদের দাবি, এই মিসাইল আরও বেশি অত্যাধুনিক। শুধু তাই নয়, ভয়ঙ্করও বটে। মুহূর্তে শত্রুকে ধ্বংস করে দিতে পারে এই মিসাইল। এমনটাই দাবি রাশিয়ার।

ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রেসিডেন্ট পুতিনকে হাইপারসনিক ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা সফল হওয়ার খবর জানান রুশ সশস্ত্র বাহিনীর জেনারেল স্টাফ ভ্যালেরি গেরাসিমভ।

তিনি বলেন, জারকন নামের এই হাইপারসনিক ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র শ্বেত সাগর থেকে মঙ্গলবার পরীক্ষা করা হয়েছে। আর তা সফল হয়েছে বলেও দাবি করা হয়েছে।

রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ও ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার একটি ভিডিও ফুটেজ প্রকাশ করেছে। যাতে দেখা যাচ্ছে একটি যুদ্ধজাহাজের খোলা ডেক থেকে ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র ছোঁড়া হচ্ছে। এবং তা একটু পাক খেয়ে ক্রমশ উপরের দিকে উঠছে। আর তা মুহূর্তের মধ্যে ব্যারেন্ট সাগরে লক্ষ্যবস্তুর দিকে ছুটে যাচ্ছে।

জেনারেল গেরাসিমোভ জানান, “পরীক্ষা সফল হয়েছে এবং ক্ষেপণাস্ত্র সরাসরি তার লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হেনেছে।” তিনি আরও জানান, ৪৫০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে ক্ষেপণাস্ত্রটি লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানে। ক্ষেপণাস্ত্রটি শত্রুর দিকে ছুটে যাওয়ার সময় সর্বোচ্চ ২৮ কিলোমিটার উপরে ওঠে এবং ৪৫০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে মাত্র সাড়ে চার মিনিট সময় নেয়।

গেরামিসভ জানান, শব্দের চেয়ে আট গুণ বেশি গতিতে চলতে সক্ষম অত্যাধুনিক এই ক্ষেপণাস্ত্র। অন্যদিকে, হাইপারসনিক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার প্রশংসা করে রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিন বলেছেন, অত্যাধুনিক এই মিসাইলের সফলতা জাতীয় নিরাপত্তার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে।

তিনি আশা করছেন, রাশিয়ার বিশেষজ্ঞরা দেশকে নতুন করে অস্ত্রসজ্জিত করার ব্যাপারে অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে অবদান রেখে চলবেন। হাইপারসনিক ক্ষেপণাস্ত্রটি আগামী কয়েক বছরের মধ্যে রুশ সামরিক বাহিনীতে যুক্ত হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

শুধু তাই নয়, আগামিদিনে এই মিসাইল বিভিন্ন দেশেও রফতানি করা হবে বলে রাশিয়ান সামরিক বাহিনী সূত্রে খবর। যদিও মিসাইল সফল ভাবে শত্রুকে আঘাত করলেও আরও মর্ডানাইসড করা হচ্ছে এটিকে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।