মস্কো: কোভিড পরিস্থিতিতে অস্থির গোটা বিশ্ব। এরই মধ্যে নৌবাহিনীতে অত্যাধুনিক অস্ত্র মোতায়েন করার কথা ঘোষণা করলেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। সেইসব অস্ত্রের চূড়ান্ত পর্যায়ের টেস্টিং চলছে বলে জানা গিয়েছে। নৌবাহিনীতে যুক্ত করা হচ্ছে হাইপারসনিক নিউক্লিয়ার স্ট্রাইক ওয়েপন ও আন্ডারওয়াটার ড্রোন। পিটার্সবার্গে নৌবাহিনী দিবস প্যারেডের আগে যুদ্ধ জাহাজ পরিদর্শনে গিয়ে রবিবার একথা জানিয়েছেন পুতিন।

প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন আরও বলেন, এই বাহিনীকে জলের নিচে পরমাণু অস্ত্র বহনে সক্ষম ড্রোন দেওয়া হবে। প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের অধীনে এগুলো চূড়ান্ত পরীক্ষার পর্যায়ে রয়েছে।

পুতিন বলেন, তিনি অস্ত্রের প্রতিযোগিতা চান না। নতুন প্রজন্মের পরমাণু অস্ত্র সম্পর্কে তিনি বলেন, তাঁর এই অস্ত্র পৃথিবীর প্রায় যে কোনও স্থানে আঘাত হানতে পারে। আরও জানা গিয়েছে যে রাশিয়ার ওই যুদ্ধ জাহাজে ডুবন্ত পরমাণু অস্ত্র পোজেইডন এবং মিসাইল জিরকন মোতায়েন করা হবে।

এই অস্ত্র হাইপারসনিক এবং শব্দের চেয়ে পাঁচগুণ বেশি গতিতে চলবে। এটাকে প্রতিহত, আটকানো কিংবা অবস্থান চিহ্নিত করা কঠিন। প্যারেড অনুষ্ঠানে পুতিন বলেন, নৌবাহিনীর সক্ষমতা বাড়ছে। এবছর তারা ৪০টি নতুন জাহাজ পাবে।

প্যারেডে সবচেয়ে ভালো জাহাজ, পরমাণু সমৃদ্ধ ডুবোজাহাজ এবং নৌবিমান চালনা প্রদর্শন করা হয় এদিন। নৌবাহিনী এই অস্ত্র কবে পাবে, তা বলেননি পুতিন। তবে খুব শীঘ্রই এই অস্ত্র পাওয়া যাবে বলে তিনি জানান।

প্রতিরক্ষা মন্ত্রক বিবৃতিতে জানায়, নৌবাহিনীর জন্য সবচেয়ে শক্তিশালী অস্ত্র তৈরি সফলভাবে শেষ হচ্ছে। পুতিন গত বছর বলেন, আমেরিকা ইউরোপে মধ্যম রেঞ্জের পরমাণু অস্ত্র মোতায়েন করলে রাশিয়া হাইপারসনিক অস্ত্র মোতায়েন করবে।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।