মস্কো: ফ্রান্স-সহ ইউরোপীয় দেশগুলি যেভাবে ইসলাম অবমাননাকর কার্টুন প্রকাশ করছে তার তীব্র নিন্দা করল রাশিয়া। মস্কো থেকে বার্তা সংস্থা রিয়ানোভোস্তি জানিয়েছে, কোনও ধর্মীয় বিশ্বাসের প্রতি অবমাননা ও ধর্মপ্রাণ জনগোষ্ঠীর অনুভুতিতে আঘাত দেওয়া রাশিয়ার দৃষ্টিতে গ্রহণযোগ্য নয়।

রুশ প্রসিডেন্টের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ বৃহস্পতিবার মস্কোয় সাংবাদিকদের জানান, ইসলামের নবীর অবমাননা করার কারণে ফ্রান্সে হিংসা বেড়ে গিয়েছে। কাজেই সকলেই আগে এই ধরনের অবমাননাকর কার্যকলাপ বন্ধ করতে হবে।

সম্প্রতি স্যামুয়েল প্যাটি নামক ফ্রান্সের একজন শিক্ষক তার ক্লাসের শিক্ষার্থীদের সামনে বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.)-র ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন করার পর এক হামলায় নিহত হন। ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাকরন ওই হত্যাকাণ্ডের জন্য তার দেশের মুসলমানদের দায়ী করেছেন এবং দাবি করেন, মুসলমানরা ফ্রান্সকে ধ্বংস করতে চাইছে।

ম্যাকরন আবার ঘোষণা করেন, ফ্রান্সে ইসলাম নিয়ে ব্যাঙ্গচিত্র প্রকাশ অব্যাহত থাকবে। তার এহেন বক্তব্যের বিরুদ্ধে বিশ্বে বহু দেশে প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে।

মুসলিম বিশ্বে প্রতিবাদ জোরদার হওয়ার পরেও ফরাসি প্রেসিডেন্ট প্রকাশ্যে ঘোষণা করেন, ফ্রান্সে এই ধরনের কার্টুন ছাপানো কখনই বন্ধ করা হবে না। পাশাপাশি তিনি একথাও বলেছেন, সারা বিশ্বে ইসলাম ধর্ম সংকটের মধ্যে রয়েছে। বৃহস্পতিবার রাশিয়ার রাজধানী মস্কোর ফরাসি দূতাবাসের সামনে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন বহু মানুষ।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.