মস্কো: রাশিয়ার বিরোধী দল নেতা অ্যালেক্সি নাভালনিকে নিয়ে আমেরিকা নাক গলালে সেটাকে আদৌ ভাল চোখে দেখবে না রাশিয়া। শুধু তাই নয় একেবারে হুমকির সুরে রাশিয়া বার্তা দিয়েছে এই ব্য়াপারে আমেরিকা এবং ইউরোপিয় ইউনিয়ন কোনও রকম নিষেধাঙ্গা জারি করতে গেলে তার পাল্টা ব্যবস্থা নেবে মস্কো। এই ব্য়াপারে আমেরিকা এবং ইউরোপিয় ইউনিয়ন কেমন ব্যবস্থা নিচ্ছে তার উপর নির্ভর করবে রাশিয়ার পাল্টা পদক্ষেপ বলে জানান হয়েছে ।

রুশ উপবিদেশমন্ত্রী সের্গেই রিয়াবকভ সোমবারে এই বিষয়ে মুখ খুলেছেন। তিনি সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, মার্কিন ও ইউরোপিয় ইউনিয়নের তেমন কোনও পদক্ষেপ নিলে তার বিরুদ্ধে ক্রেমলিন যে কোনও রকম ব্যবস্থা নিতেই পারে। তিনি দাবি করেন, তাদের নীতি সুস্থির, বোধগম্য ও একেবারে যুক্তিসঙ্গত । পাশাপাশি তিনি আরও জানান, তাঁদের জানা নেই ঠিক কোন ব্যাপারটি ওয়াশিংটনের মনোভাবকে এখন প্রভাবিত করছে। হুমকির সুরেই রিয়াবকভের বক্তব্য, তারা এই বিষয়ে শেষ দেখে ছাড়বেন। সেক্ষেত্রে তাঁরা পরিস্থিতির মূল্যায়ন করবেন এবং পরবর্তী প্রতিক্রিয়া কেমন হবে তা নির্ধারন করা হবে ।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স দুটি সূত্রকে উল্লেখ করে ইতিমধ্যেই জানিয়েছে, অ্যালেক্সি নাভালনিকে কথিত বিষ প্রয়োগের ঘটনায় এবার হোয়াইট হাউজ রাশিয়ার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা জারি করতে পারে। সেক্ষেত্রে যাদের বিরুদ্ধে আমেরিকা নিষেধাজ্ঞা জারি করবে তখন থেকে তাদের সম্পদ আটক দেওয়া হবে এবং তাদের সঙ্গে যাতে সব ধরনের লেনদেন বন্ধ করা হয় তারজন্য মার্কিন কোম্পানিগুলোর সামনে বাধা সৃষ্টি করা হবে। যদিও রাশিয়া শুরু থেকেই দাবি করে আসছে, তারা বিরোধী দলনেতা নাভালনিকে কোনও রকম বিষ প্রয়োগ করা হয়নি।

প্রসঙ্গত, মার্কিন নেতৃত্বাধীন সামরিক জোট ন্যাটোকে নিজের শক্তির জোর দেখাতে উদ্যোগী হয়েছে রাশিয়া। যারজন্য নিজের শক্তিমত্তা প্রদর্শন করতে রাশিয়া ক্রিমিয়া উপত্যকায়  সামরিক মহড়ার আয়োজন করতে চলেছে। রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের পক্ষ থেকে এক ঘোষণায় জানানো হয়েছে, আগামী মার্চ মাসের মাঝামাঝি সময়ে ক্রিমিয়া উপত্যকার ‘উপুক’ অঞ্চলে এক সামরিক মহড়া অনুষ্ঠিত হবে।

 

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।