নয়াদিল্লি:  আরও আধুনিক ভারতের মহাকাশ গবেষণা। রাশিয়ার প্রশিক্ষণে মহাকাশ গবেষণায় আরও একধাপ এগিয়ে যাবে ভারতীয় মহাকাশচারীরা। রুশ মহাকাশ গবেষণা সংস্থার তরফে এমনটাই প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে ইসরোকে। মনে করা হচ্ছে রাশিয়ার সাহায্য পেলে বিশ্বের অনেক তাবড় তাবড় দেশকে পিছনে ফেলে দিতে পারবে ভারত।

উল্লেখ্য, ইতিমধ্যে মহাকাশ গবেষণা ক্ষেত্রে নয়া দিগন্ত খুলে দিয়েছে ভারত। মহাকাশে মানুষ পাঠানোর কাজও শুরু করে দিয়েছে ইসরো। সম্ভবত নির্ধারিত সময়সীমার আগেই মিলবে সাফল্য। সেই লক্ষ্যে জোর কদমে কাজ করছে ভারতীয় মহাকাশ সংস্থা। একদিকে যেমন চলছে প্রযুক্তি পরীক্ষানিরীক্ষা তেমনই চলছে নভশ্চর বাছাইয়ের কাজ। ভারতীয় বায়ুসেনা ও ইসরো যৌথ ভাবে ভারতের প্রথম তিন নভশ্চর বাছাইয়ের কাজ করছে। চলছে প্রশিক্ষণের পরিকাঠামো তৈরির কাজও। সেই প্রক্রিয়াতেই ভারতকে সাহায্য করার ইচ্ছাপ্রকাশ করল রাশিয়া।

জানা গিয়েছে, ভারতের মাটিতেই বাছাই করা মহাকাশচারীদের প্রশিক্ষণ দেবে রাশিয়া। যা কিনা অবশ্যই যুগান্তকারী হতে চলেছে বলে মনে করা হচ্ছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।