মস্কো: আমেরিকা যদি কোনও রকম নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে তবে তার ভয়ে রাশিয়া আদৌ ভীত নয়। আর সেই বার্তাই দিয়েছে রাশিয়া। মস্কোর তরফে সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে, ইরানের উপর থেকে অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ার পর তেহরানের সঙ্গে অস্ত্র বাণিজ্য হবে।

আর তা করতে গেলে আমেরিকা কি বলল তা মোটেই গ্রাহ্য করা হবে না। সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে মস্কোর তরফে। শুধু তাই নয়, মার্কিন নিষেধাজ্ঞা কোনও ভাবেই মস্কো ও তেহরানের মধ্যকার ক্রমবর্ধমান সহযোগিতাকে ঠেকিয়ে রাখতে পারবে না বলেও জানিয়ে দেওয়া হয়েছে রাশিয়ার তরফে।

রাশিয়ার অন্যতম উপবিদেশমন্ত্রী সের্গেই রিয়াবকভ রুশ সংবাদ সংস্থা তাস-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন, “আমরা এই ধরনের নিষেধাজ্ঞার ভয়ে ভীত নই, আমরা এগুলো দেখে অভ্যস্ত।”

তিনি বলেছেন, মস্কো-তেহরান প্রতিরক্ষা সহযোগিতা মার্কিন যে কোনও ধরনের সীমাবদ্ধতার ঊর্ধ্ব থাকবে।

রিয়াবকভের বক্তব্য, “ইরানের উপরে মার্কিন অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা কোনভাবেই আমাদের নীতির উপর প্রভাব ফেলতে পারবে না। ইরানের সঙ্গে আমাদের সহযোগিতা বহুমুখী, প্রতিরক্ষা সহযোগিতা নির্ভর করবে দুই দেশের প্রয়োজন এবং পারস্পরিক ইচ্ছার উপরে। অন্য কারো নির্বাহী আদেশ আমাদের দৃষ্টিভঙ্গিকে পাল্টে দিতে পারবে না।”

রাষ্ট্রসংঘ নিরাপত্তা পরিষদকে ব্যবহার করে ইরানের বিরুদ্ধে অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহাল করতে ব্যর্থ হওয়ার পর মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প একতরফাভাবে তেহরানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন। এমনটাই দাবি পুতিনের দেশের।

ওই নিষেধাজ্ঞার আওতায় পড়েছেন ইরানের ২৭ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান। যার মধ্যে ইরানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রক এবং আণবিক শক্তি সংস্থার আধিকারিকরাও রয়েছেন।

শুধু তাই নয়, ইরানের সঙ্গে যে কোনও ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান প্রচলিত অস্ত্রের বাণিজ্য করবে তাদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হবে বলেও ফরমান জারি করা রয়েছে।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।