মস্কো: জ্বালানি তেলের ট্যাঙ্ক ফেটে রক্তগঙ্গা বইছে, নদীর জলে মিশে গিয়েছে ২০০০০ টন ডিজেল। এমন ভয়াবহ ঘটনায় সুমেরু অঞ্চলে জরুরি অবস্থা জারি করেছে রাশিয়া প্রশাসন।

জানা গিয়েছে, থার্মাল পাওয়ার স্টেশনের বিশাল এই জ্বালানির ট্যাঙ্ক ফাটার ঘটনা ঘটেছে নরিলক্সে। এটি সুমেরুবৃত্তের ১৮০ মিটার ওপরে রাশিয়ার উত্তরাংশের একটি বিচ্ছিন্ন শহর।

রাশিয়ার নরিলক্স নাইকেল খনি ব্যবসার সঙে যুক্ত এই কোম্পানির ট্যাঙ্ক ফেটে এই ভয়াবহ ঘটনা ঘটেছে, যেখানে প্রায় কুড়ি হাজার টন তেল ছিল।

বেশিরভাগ তেলই নিকটবর্তী নদীতে ভেসে গিয়েছে এবং বাকিটা মিশে গিয়েছে তাইমিরস্কি ডলগ্যানোর জেলার একতো রিসার্ভারে, এমনটাই জানিয়েছে রাশিয়া প্রশাসনের আধিকারিক।

উপর থেকে তোলা কিছু ভিডিও এবং ছবিতে দেখা গিয়েছে আমবারনয়া এবং দাদিকান নদীর বিশাল অংশ লাল হয়ে গিয়েছে। দূষণ এতটাই বেশি যে গুগল ম্যাপে এবং ইয়ান্ডেক্স ম্যাপের স্যাটেলাইট ইমেজেও তা একইরকম স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে। পরিবেশ প্রচারকরা সতর্ক করছেন, ওই অঞ্চলে দীর্ঘমেয়াদি ক্ষতি হতে পারে।

প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বুধবার জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছেন শুধু তাই নয় দ্রুত বিষয়টিতে পদক্ষেপ না নেওয়ার জন্য স্থানীয় প্রশাসনের তীব্র সমালোচনা করেছেন। ঘটনার প্রায় দু’দিন পরে নরিলক্সের একটি অংশ সাইবেরিয়ান টেরিটরি ক্র্যানোইয়ারস্ক জরুরি অবস্থা জারি করেছে।

ঘটনার গভীরতা না বুঝতে পেরে দেশের প্রশাসনের কাছে খবর পৌঁছয়নি যা নিয়ে তীব্র নিন্দা এবং সমালোচনার ঝড় বইছে। সাধারণ মানুষ সোশ্যাল মিডিয়ায় ভিডিও পোস্ট করলে ঘটনার গুরুত্ব বাড়ে এবং তা ভিডিও কলের মাধ্যমে পুতিনের কাছে পৌঁছে যায়। তবে এই ঘটণায় উত্তর চেয়েছে পুতিনও।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প