ভোপাল: ভোটের আগে কংগ্রেস-বিজেপি লড়াইয়ের কেন্দ্রে আরএসএস। কংগ্রেস ম্যানিফেস্টো দিতেই পাল্টা জবাব দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। মধ্যপ্রদেশে সরকারি অফিস চতবে আরএসএস-এর শাখা নিয়েই বিপত্তি। আর তাতেই বিরোধীদের জবাব দিলেন মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান।

কংগ্রেসের তরফে ম্যানিফেস্টোতে বলা হয়, সরকারি অফিস চত্বরে আরএসএসের শাখা চলতে দেবে না তারা। এরপরই মুখ্যমন্ত্রী জানিয়ে দেন, ‘কেউ আরএসএস নিষিদ্ধ করতে পারবে না।’ তিনি বলেন, আরএসএস একটি দেশাত্মবোধক সংগঠন। তাই সরকারি কর্মীরা আরএসএসের শাখায় যোগ দিতেই পারেন। সরকারি অফিস চত্বে আরএসএসের শাখা নিয়ে কেউ বাধা দেবে না বলে জানিয়ে দেন তিনি।

২০০৬-এর ক্ষমতায় আসার পর সরকারো অফিসে আরএসএসের শাখা নিয়ে সব নিষেধাজ্ঞা তুলে দেন শিবরাজ সিং চৌহান। সরকারি অফিসারদেরও আরএসএস যোগ দেওয়ার ব্যাপারে বাধা-নিষেধও তুলে দেন তিনি।

গত বৃহস্পতিবার ম্যানিফেস্টো প্রকাশ করছে কংগ্রেস। যার শিরোনাম ‘administration reforms’. সেখানে বলা হয়েছে, সরকারি অফিস চত্বে আরএসএসের কোনও কাজকর্ম চলবে না। এতেই ক্ষুব্ধ হন বিজেপির মুখ্যমন্ত্রী। কংগ্রেসের তরফ থেকে কমল নাথ বলেন, সাধারণ মানুষের নজর ঘুরিয়ে দিতেই আরএসএস ইস্যু নিয়ে কথা বলছে বিজেপি। তিনি বলেন, ‘আমরা কোথাও বলিনি যে আরএসএস নিষিদ্ধ করা হবে।’

লোকসভায় কংগ্রেসের চিফ হুইপ জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়াও বলেন, ধর্মকে রাজনীতির সঙ্গে গুলিয়ে ফেলছে বিজেপি। উল্লেখ্য, ১৯৮১-তে সরকারি অফিস চত্বরে আরএসএসের ক্রিয়াকলাপ নিষিদ্ধ করে দিয়েছিল কংগ্রেস।