নয়াদিল্লি: বারবার ভোট বৈতরণী পার করাবেন না মোদী-শাহ। নিজেদের সাংগঠনিক দক্ষতাতেই জিততে হবে নির্বাচনে। এবার দলীয় মুখপত্রে রাজ্যওয়াড়ি বিজেপি নেতৃত্বকে এমনই বার্তা আরএসএস-এর। একইসঙ্গে দিল্লির ভোটে বিজেপির ভরাডুবির পর দলের সাংগঠনিক শক্তি পুনর্গঠনেরও পরামর্শ দেওয়া হয়েছে আরএসএস-এর তরফে।

প্রতিটি নির্বাচনেই নরেন্দ্র মোদী বা অমিত শাহের উপর ভর করে আর জেতা যাবে না। প্রতিটি রাজ্য বিজেপি নেতৃত্বকে এবার তা স্মরণ করিয়ে দিল আরএসএস। দলের জয় সুনিশ্চিত করতে প্রধান ভূমিকা নিতে হবে রাজ্যস্তরের নেতা-কর্মীদেরই। বিজেপি নেতা-কর্মীদের বছরভর মানুষের সঙ্গে মিশে কাজ করার পরামর্শ আরএসএস-এর।

দিল্লি নির্বাচনে বিজেপির ধরাশায়ী হওয়া নিয়েও আরএসএস-এর মুখপত্রে রয়েছে একাধিক বিশ্লেষণ। আরএসএস-এর দাবি, দিল্লির ভোটে বিজেপির একাধিক ভুল ছিল। সেই ভুলগুলির ফায়দা নিয়েছে আপ। সব ভুল খুঁজে বের করে তা সমাধান করলে সাফল্য মিলবে বলেও আশাবাদী আরএসএস।

একইসঙ্গে দিল্লির বিজেপি নেতাদের আরএসএস-এর পরামর্শ, সংগঠন বাড়াতে তৎপরতা নিতে হবে স্থানীয় নেতা-কর্মীদেরই। নরেন্দ্র মোদী-অমিত শাহ সব সময় বিধানসভা ভোটে সহায়তা করতে পারবেন না। দিল্লিতে বিজেপির সংগঠনকে পুনর্গঠন করা ছাড়া ঘুরে দাঁড়ানোর আরও কোনও পথ নেই বলে সওয়াল আরএসএস-এর।

আরএসএস-এর দলীয় মুখপত্রে প্রকাশনার সম্পাদক প্রফুল্ল কেটকার লিখেছেন, দিল্লির বিধানসভা ভোটে কোনও ইস্যুই দাঁড় করাতে পারেনি বিজেপি। অরবিন্দ কেজরিওয়াল ও তাঁর সরকারের বিরুদ্ধে কোনও ইস্যুই সামনে আনা যায়নি। ভোটের প্রচারে বিজেপি যে ইস্যুগুলি সামনে এনেছিল তা মানুষের মনে দাগই কাটতে পারেনি। উল্টে ভোটের প্রচারে অনেক সুবিধাজনক জায়গায় থিল আপ। দিল্লিতে ঘুরে দাঁড়াতে গেলে দলের সাংগঠনিক পুনর্গঠন জরুরি।