পানাজি: কেরিয়ারে এর আগে কখনও কোনও টুর্নামেন্টের প্রথম তিন ম্যাচে টানা গোল পাননি। চলতি আইএসএলে সেটাই সম্ভব করলেন এটিকে-মোহনবাগানের রয় কৃষ্ণা। আর এটিকে-মোহনবাগানের জার্সিতে সপ্তম আইএসএলের প্রথম তিন ম্যাচে দুরন্ত পারফরম্যান্সের জেরে নভেম্বরের ‘প্লেয়ার অফ দ্য মান্থ’ নির্বাচিত হলেন সবুজ-মেরুনের ফিজিয়ান স্ট্রাইকার। যদিও কৃষ্ণাকে ‘প্লেয়ার অফ দ্য মান্থ’ বেছে নেওয়া হয়েছে প্রথম দু’ম্যাচের পারফরম্যান্সের ভিত্তিতে।

উল্লেখ্য, প্রথম দু’ম্যাচে যথাক্রমে কেরালা ব্লাস্টার্স এবং এসসি ইস্টবেঙ্গলের বিরুদ্ধে একটি করে গোল এসেছিল কৃষ্ণার পা থেকে। প্লেয়ার অফ দ্য মান্থ হওয়ার দৌড়ে এটিকে-মোহনবাগান স্ট্রাইকার পিছনে ফেললেন জামশেদপুর স্ট্রাইকার নেরিজাস ভালস্কিস, চেন্নাইয়িন এফসি’র অনিরুদ্ধ থাপা, ওডিশা এফসি’র দিয়েগো মৌরিসিও এবং এফসি গোয়ার ইগর আঙ্গুলোকে। সমর্থক এবং বিশেষজ্ঞ প্যানেলের সম্মিলিত ভোটেই এই খেতাব জিতে নিলেন ফিকির স্ট্রাইকার। উল্লেখ্য, ১ ডিসেম্বর দুপুর ১২টা থেকে ৪ ডিসেম্বর দুপুর ১২টা অবধি ভোটিং পোল খোলা রাখা হয়েছিল।

সমর্থকদের দেওয়া ১৬,৮৮১টি ভোটের মধ্যে কৃষ্ণা একাই সংগ্রহ করেছেন ৩,৫৪৬টি ভোট। পাশাপাশি ৯ জন বিশেষজ্ঞের মধ্যে কৃষ্ণার পক্ষে ভোট দিয়েছেন ৬ জন বিশেষজ্ঞ। ওডিশার ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার ফ্যানেদের মধ্যে সর্বোচ্চ ৪,৪১৩টি ভোট পেলেও বিশেষজ্ঞদের কোনও ভোট পাননি। উল্লেখ্য, ২৯ নভেম্বর জামশেদপুরের বিরুদ্ধে ০-২ গোলে পিছিয়ে থাকা ওডিশাকে জোড়া গোল করে ম্যাচে ফিরিয়েছিলেন এই ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার। নভেম্বরের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হয়ে খুশি এটিকে-মোহনবাগান রয় কৃষ্ণা বলেন, ‘ফুটবল কেরিয়ারে টুর্নামেন্ট শুরুর প্রথম তিন ম্যাচের প্রত্যেকটিতে এর আগে কখনও গোল করিনি। তবে প্রথম দুটি ম্যাচে গোল করার রেকর্ড ছিল।’

উল্লেখ্য, নির্ধারিত ৯০ মিনিট গোলশূন্য থাকার পর বৃহস্পতিবার তৃতীয় ম্যাচে ওডিশার বিরুদ্ধে সংযুক্তি সময়ে কৃষ্ণার হেডারেই তিন পয়েন্ট পায় এটিকে-মোহনবাগান। সেই গোল নিজের ধাত্রী মা’কে উৎসর্গ করেছেন ফিজি স্ট্রাইকার। আগামী সোমবার জামশেদপুর এফসি’র বিরুদ্ধেই তাঁর পারফরম্যান্সের দিকে তাকিয়ে দল। কারণ ওডিশার বিরুদ্ধে জয়ের পর দলের চোট-আঘাত নিয়ে বেশ উদ্বিগ্ন শুনিয়েছে হাবাসকে। মাইকেল সুসাইরাজ চোট পেয়ে ছিটকে যাওয়ার পর চোটের তালিকা নাম লিখিয়েছিলেন এদু গার্সিয়া। ওডিশার বিরুদ্ধে জয়ের পর আপফ্রন্টে কৃষ্ণার সতীর্থ ডেভিড উইলিয়ামসের চোট সম্পর্কে সকলকে জ্ঞাত করেছেন হাবাস। এদু এবং উইলিয়ামসন কবে মাঠে ফিরবেন, সেব্যাপারেও অনিশ্চিত এটিকে-মোহনবাগান কোচ।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।