মোনাকো: ফুটবল মাঠে তাঁদের প্রতিদ্বন্দ্বিতা কারোর অজানা নয়৷ একটা সময় মাঠের বাইরেও একে অপরকে সহ্য করতে পারতেন না দু’জনের কেউ৷ কিন্তু বৃহস্পতিবার উয়েফা’র বর্ষিক পুরস্কার অনুষ্ঠানে পুরোপুরি ভিন্ন দৃশ্য দেখা গেল৷ পাশাপাশি বসে খোশমেজাজে গল্প করলেন বর্তমান প্রজন্মের দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দুই ফুটবলার লিওনেল মেসি ও ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো৷

সবুজ গালিচায় বল পায়ে ফোটান মেসি ও রোনাল্ডো৷ দুই তারকা ফুটবলারের নিখুঁত পাস, ডিফেন্স চেরা থ্রু ও দুরন্ত ড্রিবলিংয়ে মন জয় করেছে দর্শকদের৷ দীর্ঘ ১৫ বছর ধরে ফুটবল মাঠে আনন্দ দিয়ে আসছেন ভক্তদের। কিন্তু প্রতি মুহূর্তেই যেন ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সে মাপা হয় মেসি ও রোনাল্ডোর পারফরম্যান্স৷ ক্রিকেটে সচিন-লারার মতো বিচার চলে কে সেরা তা নিয়েও৷

শুধু মাঠেই নয়, আন্তর্জাতিক পুরস্কার মঞ্চেও চলে একে অপরকে টেক্কার দেওয়ার পালা৷ শুধু দুই ফুটবলারের মধ্যেই নয়, দু’জনের ফ্যানেদের মধ্যেও চলে রেষারেষি৷ এক জন আন্তর্জাতিক ট্রফি না-পেলে তাঁদের ফ্যানেদের শুনতে হয় বিদ্রুপ৷ একজন হ্যাটট্রিক করলে অপরজনের থেকেও হ্যাটট্রিকের আশায় থাকেন তাঁর ফ্যানেরা।

মাঠের মধ্যে একে-অপরকে এক ইঞ্চি জমি না-ছাড়া মেসি ও রোনাল্ডো যে মাঠের বাইরে এত ভালো বন্ধু, তা দেখা গেল বৃহস্পতিবার উয়েফা’র বর্ষিক পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে৷ যেখানে মেসির পাশে বসে রোনাল্ডো জানান তাঁর ইচ্ছের কথা৷ ১৫ বছর ধরে একে অপরের বিরুদ্ধে ফুটবল খেললেও এক সঙ্গে কোনও দিন ডিনার করেননি বর্তমান প্রজন্মের দুই তারকা ফুটবলার৷

সঞ্চালিকার প্রশ্নের এক প্রশ্নের উত্তরে রোনাল্ডো বলেন, ‘আমরা ১৫ বছর ধরে এই মঞ্চ ভাগ করে নিচ্ছি। প্রায় দেড় দশকে আমরা দু’জন ছাড়া আর কেউ নেই। এই প্রতিদ্বন্দ্বিতা সহজ নয়। তবে আমাদের মধ্যে সম্পর্ক দারুণ। যদিও আমরা এখন পর্যন্ত কোনও দিন একসঙ্গে ডিনারে যাইনি৷ কিন্তু ভবিষ্যতে সেটা সম্ভব হতে পারে৷’ রোনাল্ডো যখন কথাগুলো বলছিলেন, তখন পাশে বসে মুচকি হাসছিলেন মেসি৷

দীর্ঘদিন স্পেনে দুই প্রতিদ্বন্দ্বী ক্লাবে খেলেছেন মেসি ও রোনাল্ডো৷ মেসি এখনও স্পেনে খেললেও৷ গত মরশুমে স্পেন থেকে ইতালিতে পাড়ি দিয়েছেন রোনাল্ডো৷ রিয়াল মাদ্রিদ থেকে জুভেন্তাসে নাম লিখিয়েছেন পর্তুগিজ তারকা৷ স্পেনকে মিস করলেও ইতালিতে দারুণ সময় কাটাচ্ছেন বলেও জানান সিআর সেভেন৷ তবে স্পেনের দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ক্লাবে ১৫ বছরের বেশি দ্বৈরথ নিয়ে রোনাল্ডো বলেন, ‘একে অপরকে ছাপিয়ে যাওয়ার যুদ্ধে আমাদের দু’জনের খেলার উন্নতি ঘটিয়েছে। ও ভালো খেললে আমি উন্নতির চেষ্টা করেছি, আর আমি ভালো খেললে লিও ভালো খেলার চেষ্টা করেছে।’

কিছুদিন আগে মরশুম শেষে অবসরের ইচ্ছেপ্রকাশ করেছিলেন রোনাল্ডো৷ তিনি আর মেসি একসঙ্গে অবসর নেবেন কিনা, প্রশ্নের উত্তরে রোনাল্ডো বলেন, ‘লিও আমার থেকে তিন বছরের ছোট। যদিও আমি আমার বয়সের তুলনায় ফিট। ইচ্ছে হলে খেলা চালিয়েও যেতে পারি। তাই আগামী বছরও আমাকে এখানে দেখা যেতে পারে, তার পরের বছরও দেখলে অবাক হবেন না৷’