ইন্দোর: টি-২০ সিরিজ জয়ের পর বাংলাদেশের বিরুদ্ধে টেস্টেও বিরাট আধিপত্য৷ ইন্দোরে সিরিজের প্রথম টেস্টে বাংলাদেশকে দেড়শো রানে বেঁধে রাখার পর প্রথম দিনের শেষ প্রথম ইনিংসে এক উইকেট হারিয়ে ৮৬ রান তুলেছে ভারত৷ অর্থাৎ প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের থেকে ৬৪ রানে পিছিয়ে রয়েছে ভারত৷

দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজে স্বপ্নের ফর্মে থাকা রোহিত শর্মা এদিন চূড়ান্ত ব্যর্থ৷ মাত্র ৬ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন রোহিত৷ ইনিংসের অষ্টম ওভারে আবু জায়েদের বলে উইকেটকিপার লিটন দাসের হাতে সহজ তুলে দিয়ে ড্রেসিংরুমে ফেরেন ‘হিটম্যান’৷ অথচ প্রোটিয়াদের বিরুদ্ধে তিন টেস্টের সিরিজে পাঁচশোর বেশি রান এসেছিল রোহিতের ব্যাট থেকে৷ প্রথম টেস্টে দু’টি সেঞ্চুরি এবং তৃতীয় টেস্টে ডাবল সেঞ্চুরি করেছিলেন রোহিত৷

বাংলাদেশের বিরুদ্ধে টি-২০ সিরিজেও ফর্মে ছিলেন রোহিত৷ দ্বিতীয় ম্যাচ একাই ব্যাট হাতে দলকে জিতেছিলেন হিটম্যান৷ এদিন রোহিত ব্যর্থ হলেও রান পেয়েছেন ওপর ওপেনার ময়াঙ্ক আগরওয়াল এবং নম্বর তিন ব্যাটসম্যান চেতেশ্বর পূজারা৷ দিনের শেষে পূজারা ৪৩ এবং ময়াঙ্ক ৩৭ রানে ক্রিজে রয়েছেন৷ রোহিত দ্রুত ফিরে যাওয়ার পর দ্বিতীয় উইকেটে অবিভক্ত ৭২ রান রান যোগ করেন পূজারা ও ময়াঙ্ক৷

এর আগে টস জিতে প্রথম ব্যাটিং নিয়ে স্কোরবোর্ডে বড় রান তুলতে পারেনি বাংলাদেশ৷ শুরুতেই অর্থাৎ ৩১ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে ব্যাকফুটে চলে যায় টাইগাররা৷ তারপর ক্যাপ্টেন মোমিনুল হক ও মুশফিকুর রহিমের ব্যাটে লড়াইয়ে চেষ্টা করে বাংলাদেশ৷ চতুর্থ উইকেটে দু’জনে ৬৮ রান যোগ করেন৷ কিন্ত ব্যক্তিগত ৩৭ রানেবাংলাদেশ অধিনায়ক রবিচন্দ্রন অশ্বিনের বলে বোল্ড হয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরার পর নিয়মিত উইকেট হারাতে থাকে টাইগাররা৷

তবে বাংলাদেশ ইনিংসে জোড়া ধাক্কা দেন মহম্মদ শামি৷ পরপর মাহমুদুল্লাহ ও রহিমকে তুলে নেন ভারতের এই ডানহাতি পেসার৷ ব্যক্তিগত ৪৩ রানে রহিমের স্টাম্প ছিটকে দেন শামি৷ চা-বিরতির ঠিক আগে শামির জোড়া ধাক্কার পর তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে বাংলাদেশ ইনিংস৷ শামির বোলিংয়ের সামনে দাঁড়াতে পারেননি টাইগাররা৷

৫৮.৩ ওভারে শেষ হয়ে যায় বাংলাদেশ ইনিংস৷ ভারতীয় বোলারদের মধ্যে সবচেয়ে সফল শামি৷ ১৩ ওভারে ৫টি মেডেন-সহ মাত্র ২৭ রান দিয়ে সর্বাধিক ৩টি উইকেট নেন বাংলার ডানহাতি পেসার৷ উমেশ যাদব, ইশান্ত শর্মা ও অশ্বিন দু’টি করে উইকেট নিয়েছেন৷