দার্জিলিং: গোর্খা ও অন্যান্য পাহাড়ি সম্প্রদায়ের মানুষকে ঘরছাড়া করতে রোহিঙ্গাদের ঢুকিয়ে দেওয়া হচ্ছে দার্জিলিং ও কালিম্পং-এ। এমনটাই অভিযোগ করেছেন পলাতক গোর্খা জনমুক্তি মোর্চা নেতা বিমল গুরুং। তিনি বলেন, ষড়যন্ত্র করে গোর্খাদের বিপদে ফেলতেই রোহিঙ্গাদের পাকাপাকিভাবে থাকার জায়গা করে দেওয়া হবে।

একটি প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়ে বিমল গুরুং অভিযোগ করেন, ‘কেন্দ্র দেশের জন্য বিপজ্জনক হিসেবে চিহ্নিত করা সত্ত্বেও রোহিঙ্গাদের উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে ঢুকিয়ে দেওয়া হচ্ছে পাহাড়ে। গোর্খাদের অস্তিত্ব সরাতেই পাঠানো হচ্ছে তাদের। গোর্খা, রাজবংশী, আদিবাসী ও ভারতীয় বাঙালিদের তাড়ানোর চেষ্টা করা হচ্ছে ওই এলাকা থেকে।’

এই বিপদ থেকে মুক্তি পেতে তিনি আর্জি জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সি-এর কাছে। দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানানো হয়েছে তাঁদের।

নাম না করে বিমল গুরুং-এর দাবি, ভোট ব্যাংকের জন্যই রোহিঙ্গাদের এই অঞ্চলে পাঠাচ্ছে কিছু রাজনৈতিক দল। জাতীয় নিরাপত্তার বিষয়টাকে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে না রাজনীতি আর ভোট ব্যাংকের জন্য। তিনি এলাকার সব মানুষের উদ্দেশে বলেন, ‘আপনারা সজাগ থাকুন। সন্দেহজনক কিছু দেখলেই রিপোর্ট করুন।’

গুরুং আরও উল্লেখ করেন, দার্জিলিং, তরাই, ডুয়ার্সের কাছেই আছে আন্তর্জাতিক সীমারেখা। তাই এই অঞ্চলগুলি খুবই স্পর্শকাতর। ভুটান, নেপাল, বাংলাদেশ কিংবা তিব্বতের সীমান্ত এখান থেকে খুব দূরে নয়।